ফোড়া পাকানোর ঘরোয়া উপায় - ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট

অনেক সময় শরীরের বিভিন্ন স্থানেফোড়া বের হয়ে থাকে যখন শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় তখন এই ফোড়া বের হতে থাকে। যখন ফোড়া বের হয় তখন অনেক যন্ত্রণা করে তাই এখন আপনাদের জানাবো ফোড়া পাকানোর ঘরোয়া উপায় ও ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট এর নাম। যেগুলোর মাধ্যমে ফোড়া ভালো করতে পারবেন।
ফোড়া পাকানোর ঘরোয়া উপায়

ফোড়া পাকানোর ঘরোয়া উপায় যদি ফলো করেন তাহলে খুব তাড়াতাড়ি ফোড়া পেকে যাবে এবং ফেটে বের হয়ে যাবে। ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট খাওয়ার চেয়ে ঘরোয়া উপায় গুলোই ভালো হবে তাই চলুন সমস্ত বিষয়ে জেনে নেওয়া যাক। 

সূচিপত্রঃ ফোড়া পাকানোর ঘরোয়া উপায় - ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট 

ফোড়া পাকানোর ঘরোয়া উপায়

কিছু ঔষধি গাছগাছালি রয়েছে যেগুলোর মাধ্যমে ঘরে বসেই ফোড়া পাকাতে পারবেন। এবং ফোড়া পেকে গেলে তা ফেটে বের হয়ে যাবে তখন অনেকটা স্বস্তি পাবেন। তো জেনে রাখুন ফোড়া পাকানোর ঘরোয়া উপায় গুলো।

  • পান পাতা দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়
  • নিম পাতা দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়
  • মসুর ডাল দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়
  • লাল জবা পাতা দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়
  • আকন্দ গাছের আঠা দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়
  • তিলের তেল ও নিশিন্দা পাতার রস দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়
  • পেঁয়াজের রস দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়
  • অর্জুন গাছের পাতা দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়
  • ভেল্লা গাছের ছাল দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়
  • গরম পানি দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

পান পাতা দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

ফোড়া পাকানোর জন্য পান পাতা ব্যবহার করতে পারেন। ফোড়া পাকাতে পান পাতা ব্যবহার করার নিয়ম হলো প্রথমে একটি পান পাতা নিবেন এবং সেটি ভালোভাবে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিবেন তারপরে সেই পানপাতার মধ্যে হালকা পরিমাণ ঘি মাখাবেন তারপরে সেই পানপাতা ফোড়ার উপর লাগিয়ে রাখবেন তাহলে দ্রুত ফোঁড়া পেকে যাবে এবং ফেটে বের হয়ে যাবে। 

নিম পাতা দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

ফোড়া পাকানোর আরেকটি কার্যকরী ঘরোয়া উপায় হল নিম পাতা। প্রথমে গাছ থেকে নিমপাতা নিয়ে আসবেন এবং সেগুলো পরিষ্কার করে বেটে নিবেন তারপরে সেগুলো ফোড়ার ওপর লাগাবেন অথবা পানির মধ্যে নিম পাতা দিয়ে পানি গরম করে সেই পানি ফোড়ার উপর ঢালবেন। এভাবে খুব দ্রুত ফোড়া পাকাতে পারবেন। 

আরো পড়ুন: কোমর ব্যথা সারানোর সহজ উপায় - কোমরের ব্যথা কমানোর ট্যাবলেট

মসুর ডাল দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

যদি ফোড়া না পাকে এবং না ফাটে তাহলে মসুর ডাল ব্যবহার করতে পারেন। ফোড়া পাকানোর জন্য ও ফাটানোর জন্য মসুর ডাল পিষে নিবেন তারপরে সেগুলো করার উপর ভালোভাবে লাগিয়ে রাখবেন তাহলে খুব দ্রুতই ফোড়া পেকে যাবে এবং ফেটে যাবে। 

লাল জবা পাতা দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

ফোড়া পাকানোর এবং ফাটানোর আরেকটি ঘরোয়া উপায় হল লাল জবা পাতা। প্রথমে একটি লাল জবা পাতা গাছ থেকে নিয়ে আসবেন তারপরে সুন্দরভাবে মাঝখানে ফুটো করবেন যাতে করে ফোড়ার মুখ ঢেকে না যায়। তারপরে ফোঁড়ার মুখ বের করে রেখে ফোড়ার ওপর পাতাটি লাগিয়ে দিবেন। এরপর লাল জবা ফুল পিষে ফোঁড়ার মুখের উপর লাগিয়ে দিবেন তাহলে খুব দ্রুতই পোড়া পেকে যাবে এবং ফেটে যাবে ইনশাআল্লাহ। 

আকন্দ গাছের আঠা দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

অনেক সময় ফোড়া পেকে যাওয়ার পরেও ফাটতে চায় না তখন আপনি আকন্দ গাছের আঠা ব্যবহার করতে পারেন। প্রথমে আকন্দ গাছ থেকে আঠা সংগ্রহ করবেন তারপর সেগুলো ফোড়ার উপর লাগাবেন তাহলে দেখবেন খুব তাড়াতাড়ি ফোড়া ফেটে পুজ বেরিয়ে যাবে। তারপর ফোঁড়া তাড়াতাড়ি শুকানোর জন্য নিমপাতা এবং সরিষার তেল হালকা গরম করে সেখানে লাগাবেন তাহলে তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যাবে। 

তিলের তেল ও নিশিন্দা পাতার রস দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

পোড়ার ব্যাথা কমানোর জন্য এবং ফোড়া ভালো করার জন্য তিলের তেল ও নিশিন্দা পাতার রস একসাথে মিশিয়ে সেটা ফোড়ার উপর লাগালে খুব দ্রুতই ফোড়া পেটে ফেটে যাই এবং ব্যথা ভালো হয়ে যায়। তাই ফোঁড়া ভালো করতে চাইলে এই ঘরোয়া উপায়টি অবলম্বন করতে পারেন। 

পেঁয়াজের রস দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

ফোড়া পাকানোর জন্য ফাটানোর জন্য এবং ব্যথা ভালো করার জন্য একটি পেঁয়াজ থেকে রস বের করে নিবেন তারপরে সেগুলো হালকা পরিমাণ গরম করবেন। এবং তারপরে সেই গরম করা পেঁয়াজের রসগুলো ফোড়ার উপর ভালোভাবে লাগাবেন তাহলে খুব দ্রুতই ফোড়া ভালো হয়ে যাবে।

অর্জুন গাছের পাতা দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

আপনারা হয়তো সবাই জানেন অর্জুন গাছের অনেক ঔষধি গুনাগুন রয়েছে। তেমনি অর্জুন গাছের পাতা দিয়ে ফোড়া পাকানো হয়ে থাকে। প্রথমে একটি অর্জুন গাছের পাতা সংগ্রহ করবেন তারপর সেই পাতা পরিস্কার করে ফোড়ার উপর লাগিয়ে রাখবেন। তাহলে দেখবেন আস্তে আস্তে ফোড়াটি পেকে যাবে। 

ভেল্লা গাছের ছাল দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

গ্রামে আমাদের বাড়ির আশেপাশে ভেল্লা গাছ পাওয়া যায় সেই ভেল্লা গাছের ছাল খুব দ্রুত ফোড়া পাকাতে এবং ফাটাতে পারেন। সেজন্য প্রথমে ভেল্লা গাছের ছাল সংগ্রহ করবেন এবং সেগুলো ভালোভাবে পিষে নিবেন তারপরে সেগুলো ফোড়ার উপর লাগাবেন। এভাবে কয়েকদিন লাগাতে পারলে ফোড়া পেকে যাবে এবং ফেটে যাবে। 

গরম পানি দিয়ে ফোড়া পাকানোর উপায়

ফোড়া তাড়াতাড়ি পাকানোর জন্য একটি পাত্রে হালকা পরিমাণ পানি নিবেন এবং সেগুলো কুসুম গরম করে নিবেন তারপরে ফোড়ার ওপর সেই পানিগুলো ঢালবেন তাহলে গরম পানির উষ্ণতা পাওয়ার ফলে তাড়াতাড়ি ফোড়া পেকে যাবে ইনশাআল্লাহ। 

ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট - ফোড়ার এন্টিবায়োটিক ঔষধের নাম

উপরের অংশে বলা ফোড়া পাকানোর ঘরোয়া উপায় গুলো যদি ব্যবহার করতে পারেন তাহলে কয়েকদিনের মধ্যেই ফোড়া পেকে পেটে বের হয়ে যাবে। তারপরও যদি দেখেন ফোড়া পারতেছেনা তাহলে কিছু ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট রয়েছে সেগুলো সেবন করতে পারেন। ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট গুলো হলোঃ 

  • Doxin 100 mg
  • Cefixime 3- 200 mg
  • Sefril 250 mg
  • Levofloxacin 500 mg
  • Chpran 500 mg
  • Flucloxacillin 500 mg

বাজারে অনেক ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট রয়েছে তবে এই পাঁচটি একটু বেশী কার্যকরী। তবে এইগুলো ট্যাবলেট খাওয়ার বিভিন্ন নিয়ম রয়েছে তাই চিকিৎসক এর পরামর্শ অনুযায়ী খাবেন। ভুলেও চিকিৎসক এর নিয়ম ছাড়া কোনো ট্যাবলেট সেবন করবেন না। 

ফোড়া পাকানোর মলম

ফোড়া পাকানোর মলম এর নাম অনেকে জানতে চেয়ে থাকেন কিন্তু আমরা অনেক খোঁজাখুঁজি করার পরেও ফোড়া পাকানোর মলম এর নাম জানতে পারিনি সেজন্য আপনি যদি ফোড়া পাকানোর মলম এর নাম জানতে চান অথবা ব্যবহার করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে চিকিৎসকের সাথে কথা বলতে হবে। তাহলে তিনি আপনাকে ফোড়া পাকানোর মলম দিতে পারবেন এবং সেই মলম দিয়ে ফোড়া ভালো করতে পারবেন। 

ফোড়ার ব্যাথা কমানোর ঔষধ

শরীরের যে কোন স্থানে যখন ফোড়া বের হয় তখন অনেক ব্যথা করে থাকে সেজন্য ফোড়ার ব্যাথা কমানোর ঔষধ কমাতে কিছু ঔষধ রয়েছে সেগুলো সেবন করতে পারেন। ফোড়ার ব্যাথা কমানোর ঔষধ Xidolac সেবন করতে পারেন যদি ব্যথা থাকে তাহলে কেবলমাত্র সেবন করবেন আর যদি ব্যথা না থাকে অথবা ব্যথা ভালো হয়ে যায় তাহলে আর এই ঔষধটি সেবন করবেন না। এবং চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সেবন করবেন। 

পাছায় ফোড়া হলে করণীয়

শরীরের বিভিন্ন অংশে ফোড়া হয়ে থাকে কিন্তু এমন অনেক জায়গা রয়েছে যেখানে ফোড়া হলে কাউকে দেখানো যায় না বা বলতে কিছুটা লজ্জা লাগে। যেমন অনেকের পাছায় ফোড়া হয়ে থাকে যা অনেক যন্ত্রণাদায়ক এবং সেটা কাউকে দেখানো যায় না বা বলা যায় না। তো এই অবস্থায় আপনার করণীয় কি? পাছায় ফোড়া হলে করণীয় চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করার এবং চিকিৎসা গ্রহণ করা।

যদি ফোড়া চিকিৎসা গ্রহণ করেন এবং কিছু এন্টিবায়োটিক ঔষধ সেবন করেন তাহলে দ্রুতই পাছার ফোড়া ভালো হয়ে যাবে। তবে এটা যদি জটিল আকার ধারণ করে তাহলে অস্ত্র পাচার করার মাধ্যমে ভেতরের পুজ গুলো বের করে ফেলতে হবে তারপর কিছু ঔষধ সেবন করলে তাড়াতাড়ি ভালো হয়ে যাবে। 

আরো পড়ুন: পুরুষাঙ্গে জ্বালাপোড়া কেন হয় - পুরুষের প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হলে করণীয়

অথবা আপনি চাইলে আরেকটি ঘরোয়া উপায় ব্যবহার করে দেখতে পারেন এটা হল হালকা পরিমাণ সরিষার তেলের মধ্যে রসুন দিয়ে সেই তেল গরম করে নিবেন তারপর ফোড়ার উপর লাগাবেন তাহলে ইনশাআল্লাহ ফোড়া ভালো হয়ে যাবে। 

ফোড়া শক্ত হলে করণীয়

অনেক সময় ফোড়া বের হওয়ার পরে সেটা অনেক শক্ত হয়ে যায় ইচ্ছে করে ফোড়া পাকতে চায় না আবার ফাটতে চায়না এতে করে ফোড়া থেকে অনেক যন্ত্রণা পেতে হয়। তাই ফোড়া শক্ত হলে করণীয় কিছু কাজ রয়েছে সেগুলো করতে পারেন। 

যদি দেখেন ফোড়া বের হওয়ার পরে সেটা শক্ত হয়ে গেছে তাহলে একটি পটল থেকে শ্বাস তুলে নিবেন তারপরে সেগুলো ফোড়ার একটি ন্যাকড়ার মাধ্যমে জড়িয়ে রাখবেন তাহলে দেখবেন খুব দ্রুত ফোড়া নরম হয়ে গেছে। 

অথবা যজ্ঞডুমুর পানির মধ্যে মেশাবেন এতে করে পানি তখন আঠা আঠা হয়ে যাবে তখন সেগুলো আঠা ফোড়ার উপর লাগিয়ে রাখবেন তাহলে খুব দ্রুত ফোড়া নরম হয়ে যাবে। এগুলো উপায় অবলম্বন করার পরে যদি ফোড়া নরম না হয় তাহলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহণ করবেন।

ফোড়া থেকে কি ক্যান্সার হয়

শরীরের যখন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় তখন শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফোড়া বের হতে থাকে যা অনেক যন্ত্রণাদায়ক হয়ে থাকে। এই ফোড়া গুলো হয়ে থাকে ছত্রাক ইনফেকশনের কারণে। কোন ব্যক্তির শরীরে যদি ফোড়া হওয়ার পরে সেটা অনেকদিন থাকে তাহলে সেখান থেকে স্কিন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। 

আরো পড়ুন: দাঁতের মাড়িতে ব্যথা হলে করণীয় - দাঁতের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায় 

তাই বলা যায় ফোড়া থেকে ক্যান্সার হতে পারে। তবে ভয়ের কোন কারণ নেই ফোড়া হওয়ার পরে যদি দ্রুত চিকিৎসার মাধ্যমে সেটা ভালো করতে পারেন তাহলে ক্যান্সার হবে না। শুধু যে ফোঁড়ার কারনে ক্যান্সার হয় এমনটি নয় আরো বিভিন্ন কারণে ক্যান্সার হতে পারে তাই সবসময়ই সতর্ক থাকবেন এবং শরীরে কোন ঘা ফোড়া হলে দ্রুত চিকিৎসা গ্রহণ করবেন। 

ফোড়া পাকানোর ঘরোয়া উপায় - ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট: শেষ কথা

আশা করছি উপরের অংশগুলো পড়ে আপনারা ফোড়া পাকানোর ঘরোয়া উপায় এবং ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট এর নাম সহ আরো বেশ কিছু বিষয়ে জানতে পেরেছেন। তবে আপনাদের আরেকটি কথা বলতে চাই ফোড়া পাকানোর ট্যাবলেট খাওয়ার চেয়ে ঘরোয়া উপায় গুলো বেশি নিরাপদ তাই ট্যাবলেট না খেয়ে ঘরোয়া উপায় গুলো অবলম্বন করবেন। 

এই বিষয়ে যদি আপনাদের আরো কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে সেটা কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন আমরা আপনাকে সেটা সঠিক তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করব। এবং এরকম আরো বিভিন্ন তথ্য পেতে আমাদের JONOPRIYO BLOG  ওয়েবসাইট নিয়মিত ফলো করতে পারেন। সবাই ভালো থাকবেন আজকের মত এখানেই শেষ করছি।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন