গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা - আসল গ্রিন টি চেনার উপায়

আসসালামু আলাইকুম ওজন কমানোর জন্য গ্রিন টি অনেক উপকারী। তাই আজকে আপনাদের জানাবো গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে এবং আসল গ্রিন টি চেনার উপায় সম্পর্কে। আপনারা যারা গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে জানতে চান তারা আজকের আর্টিকেল থেকে জেনে নিতে পারেন। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে।
গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা

গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা আসল গ্রিন টি চেনার উপায় গ্রিন টি বানানোর নিয়ম ওজন কমাতে গ্রিন টি খাওয়ার নিয়ম কি এ সকল বিষয়ে আজকের আর্টিকেলে আলোচনা করা হবে তাই আপনি যদি সকল বিষয়ে জানতে চান তাহলে পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়ে ফেলুন। 

পেজ সূচিপত্রঃ গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা - আসল গ্রিন টি চেনার উপায়

গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা

আজকাল আমরা বিভিন্ন রকম ভুল কাজ করে আমাদের শরীরের ওজন অনেক বাড়িয়ে ফেলি তাই আপনি যদি শরীরের ওজন কমিয়ে স্লিম ফিট থাকতে চান তাহলে আপনার জন্য গ্রিন টি হতে পারে অনেক উপকারী আজকে আপনাদের এই অংশে জানাবো গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে। প্রথমে এই অংশ থেকে জেনে নিন গ্রিন টি খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা সম্পর্কে এবং নিচে গ্রিন টি এর অপকারিতা সম্পর্কে জানতে পারবেন। 

গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা:

  • রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে
  • ওজন কমায়
  • উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে
  • ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করে
  • ক্যান্সার প্রতিরোধে
  • হার্ট সুস্থ রাখে
  • ত্বকের সমস্যা সমাধানে
  • মস্তিষ্ক বা ব্রেন ভালো রাখে
  • ক্লান্তি দূর করে
  • মুখের দুর্গন্ধ দূর করে

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে: গ্রিন টি এর মধ্যে এন্টিঅক্সিডেন্ট সহ আরো বিভিন্ন রকম উপাদান রয়েছে সেজন্য আপনি যদি প্রতিদিন নিয়ম করে গ্রিন টি পান করতে পারেন তাহলে এতে করে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে এবং শরীরে রোগ হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকবে।

ওজন কমায়: শরীরে যখন অতিরিক্ত মেদ সৃষ্টি হয় তখন ওজন বেড়ে যায়। আর এই ওজন কমানোর জন্য গ্রিন টি অনেক উপকারী। নিয়মিত যদি গ্রিনটি পান করতে পারেন তাহলে শরীরের মেদ ঝরাতে অনেক ভাল কাজ করবে এই গ্রিন টি। এবং শরীরের মেদ ঝরিয়ে ওজন কমাতে গ্রিন টি নিয়মিত নিয়ম মেনে পান করবেন।  

আরো পড়ুনঃ আমলকি খাওয়ার ২১ টি উপকারিতা - আমলকি খাওয়ার অপকারিতা 

উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে: উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য গ্রিন টি অনেক উপকারী। আপনার যদি উচ্চ রক্তচাপের মত সমস্যা থেকে থাকে তাহলে নিয়মিত পরিমাণ মতো গ্রিন টি পান করুন তাহলে ইনশাআল্লাহ উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন এবং সুস্থ থাকতে পারবেন। 

ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করে: গ্রিন টি এর আরেকটি সেরা উপকারিতা হলো ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ বা প্রতিরোধ করতে অনেক বেশি কার্যকরী। এজন্য আপনি যদি নিয়মিত পরিমাণ মতো গ্রীন টি পান করতে পারেন তাহলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারবেন। 

ক্যান্সার প্রতিরোধে: ক্যান্সার সবচেয়ে বড় আতঙ্কের নাম এবং এই ক্যান্সার বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে যার ফলে আমাদের মৃত্যু ঝুঁকি রয়েছে। তাই এই সকল ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে অনেক বেশি উপকারী এই গ্রিন টি। যেমন স্কিন ক্যান্সার, ব্রেন ক্যান্সার, বেস্ট ক্যান্সার, পোস্টেট ক্যান্সার, লিভার ক্যান্সার সহ সকল ধরনের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে গ্রিন টি অনেক উপকারী। তাই ক্যান্সার প্রতিরোধে গ্রিন টি পান করবেন। 

হার্ট সুস্থ রাখে: অনেক সময় আমাদের হার্টের সমস্যা থাকার কারণে হার্ট অ্যাটাকের মত লক্ষণ দেখা দেয় এবং অনেকেই হার্ট অ্যাটাক করে মৃত্যুবরণ করে। তাই আপনি যদি আগে থেকেই হার্টকে সুস্থ রাখতে চান তাহলে নিয়মিত পরিমাণ মতো গ্রিন টি পান করতে পারেন। এতে করে হার্টসুস্থ থাকবে এবং হার্ট অ্যাটাকের মতো সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না। 

ত্বকের সমস্যা সমাধানে: গ্রিন টি এর আরেকটি সেরা উপকারিতা হলো ত্বকের সমস্যার সমাধান করতে সাহায্য করে। যেমন অনেক সময় আমাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা নষ্ট হয়ে যায় ব্রণ বের হয় এবং কালো দাগ পড়ে যায় এ সকল সমস্যা দূর করতে গ্রীন টি অনেক উপকারী। নিয়মিত যদি গ্রিন টি পান করতে পারেন চেহারার উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে এবং চুল ভালো থাকবে। 

মস্তিষ্ক বা ব্রেন ভালো রাখে: আমাদের মস্তিষ্কে বা ব্রেনে যদি রক্ত চলাচল ঠিক না থাকে তাহলে মস্তিষ্ক বা ব্রেন ভালো থাকে না। আর এই মস্তিষ্কব্য বা ব্রেন ভালো রাখার জন্য গ্রিন টি অনেক উপকারী। নিয়মিত গ্রিন টি পান করলে মস্তিষ্কের রক্ত চলাচল ঠিক থাকে এবং ব্রেন ভালো থাকে এবং ব্রেন ভালো কাজ করে। 

Google নিউজে আমাদের ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপরে ফলো করুন

ক্লান্তি দূর করে: অনেক সময় আমাদের বিভিন্ন কারণে অনেক ক্লান্তি লাগে আর এই ক্লান্তি দূর করার জন্য গ্রিন টি হতে পারে অনেক ভালো উপকারী। যদি ক্লান্তি লাগলে গ্রিন টি পান করতে পারেন তাহলে ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে। তবে মনে রাখবেন পরিমাণ মতো খেতে হবে অতিরিক্ত বেশি পরিমাণ খেলে এটা আবার ক্ষতির কারণ হতে পারে। 

মুখের দুর্গন্ধ দূর করে: মুখের মধ্যে যখন ব্যাকটেরিয়া আক্রমণ করে তখন আমাদের দাঁতের ক্ষতি করে এবং মুখে দুর্গন্ধ সৃষ্টি করে। আর এই মুখের মধ্যে সৃষ্টি হওয়া ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে গ্রিন টি এর মধ্যে এমন একটি উপাদান রয়েছে। তাই আপনি যদি গ্রিন টি নিয়মিত পান করতে পারেন তাহলে মুখের দুর্গন্ধ দূর হয়ে যাবে এবং দাঁত সুস্থ থাকবে।  

আসল গ্রিন টি চেনার উপায় 

বাজারে বিভিন্ন রকম টি পাওয়া যায় কিন্তু এ সকল টি এর মধ্যে সবথেকে ভালো হলো গ্রিন টি এর মধ্যে রয়েছে এন্টি এক্সিডেন্ট যা আমাদের শরীরের খারাপ কোলেস্টরেল বের করে দিতে সাহায্য করে এবং এই গ্রিন টি আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী। কিন্তু বর্তমানে বাজারে অনেক গ্রিন টি পাওয়া যায় যার মধ্যে বেশিরভাগ গ্রিন টি ভেজালযুক্ত এবং এগুলো আমাদের শরীরের জন্য কোন উপকারী নয় বরং ক্ষতিকর। তাই আমাদের গ্রিন টি কেনার আগে এবং পান করার আগে জানতে হবে আসল গ্রিন টি চেনার উপায়। 

আসল গ্রিন টি চেনার উপায় উপায় গুলো হলো:

  • আসলে এবং সতেজ গ্রিন টি হালকা সবুজ রঙের হবে।
  • আসল গ্রিন টি বাছাই করতে হলে টি ব্যাগ ওয়ালা গ্রিন টি এড়িয়ে চলুন
  • আসল গ্রিন টি এর পাতা আকার বড় হয়।
  • আসল গ্রিন টি ৬ মাসের বেশি রাখতে পারবেন না
  • যদি গ্রীন টি এর ঘ্রাণ হালকা সবুজ ঘাসের মত হয় তাহলে বুঝবেন এটি আসল গ্রিন টি
  • আসল গ্রিন টি চেনার আরেকটি উপায় হলো গ্রিন টি এর প্যাকেটে ইজিসিজি রয়েছে কিনা দেখে কিনবেন।
এগুলোই মূলত আসল গ্রিন টি চেনার উপায় তাই আপনি যদি আসল গ্রিন টি কিনতে চান তাহলে এগুলো লক্ষ্য করবেন। বাজারে এখন অনেক গ্রীন টি পাওয়া যায় যেগুলো রং সবুজ হয় না তাই যেগুলো গ্রিন টি দেখবেন সবুজ রঙের নয় সেগুলো গ্রিন টি বুঝতে হবে নকল এবং সেইগুলো গ্রিন টি কিনবেন না।আশা করছি ভালোভাবে জানতে পারলেন আসল গ্রিন টি চেনার উপায় সম্পর্কে। 

গ্রিন টি বানানোর নিয়ম

অনেকেই ওজন কমানোর জন্য গ্রিন টি পান করতে চান কিন্তু নতুন হওয়ার কারণে গ্রিন টি বানানোর নিয়ম জানেন না আসুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক গ্রিন টি বানানোর নিয়ম সম্পর্কে। 

প্রথমে পানি গরম করে নিবেন তারপরে একটা পরিষ্কার পাত্রে ঢালবেন এবং তারমধ্যে চা পাতা বা গুড়া দিবেন দেওয়ার পরে হালকা ঠান্ডা করে নিবেন। হালকা ঠান্ডা হলে সেটা চা এর কাপ বা চায়ের মগ এ ঢালবেন তারপর সেই গ্রিন টি পান করবেন। গ্রিন টি বানানোর সময় গ্রিন টি এর মধ্যে আদা কেটে দিতে পারেন তাহলে আরো ভালো উপকারীতা পাবেন। 

ওজন কমাতে গ্রিন টি খাওয়ার নিয়ম - গ্রিন টি খাওয়ার সময়

গ্রিন টি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী কিন্তু যেমন আমাদের ওজন কমাতে অনেক সাহায্য করে এই গ্রিন টি তাই আপনি যদি ওজন কমাতে চান তাহলে ওজন কমাতে গ্রিন টি খাওয়ার নিয়ম এবং গ্রিন টি খাওয়ার সময় সম্পর্কে জানতে হবে। অনেকেই গ্রিন টি খাওয়ার নিয়ম এবং সময় সম্পর্কে জানেনা সেজন্য গ্রিন টি পান করার পরেও কোন উপকারিতা পায় না।সেজন্য জেনে নিন ওজন কমাতে গ্রিন টি খাওয়ার নিয়ম বা গ্রিন টি খাওয়ার সময় সম্পর্কে।

আরো পড়ুনঃ টমেটো খাওয়ার ১২ টি উপকারিতা - টমেটো খাওয়ার অপকারিতা 

গ্রিন টি খাওয়ার নিয়ম হলো আপনি যখন গ্রিন টি তৈরি করবেন তখন সেই পানি যেন হালকা পরিমাণ গরম থাকে অর্থাৎ অতিরিক্ত বেশি পরিমাণ পানি গরম করে সেই পানি দিয়ে গ্রিন টি খাবেন না।এবং গ্রিন টি খাওয়ার নিয়ম হলো খালি পেটে গ্রিন না খেয়ে কোন খাবার খাওয়ার পরে গ্রিন টি খাবেন। গ্রিন টি খাওয়ার সঠিক নিয়ম হলো সকালবেলা খাবার খাওয়ার ৪৫ থেকে ১ ঘন্টা পরে গ্রিন টি পান করতে হবে।

গ্রিন টি খাওয়ার সঠিক সময় হলো খাবার খাওয়ার একঘন্টা পরে, ব্যায়াম করার পূর্বে, রাতে ঘুমাতে যাওয়ার দুই ঘন্টা আগে এই কয়েকটি সময়ে গ্রিন টি খাওয়া বেশি ভালো এবং ভালো উপকারিতা পাওয়া যায়। তাই এই সকল নিয়ম মেনে নিয়মিত গ্রিন টি খাওয়ার চেষ্টা করবেন তাহলে ইনশাআল্লাহ ভালো উপকারিতা পাবেন।  

গ্রীন টি কোনটি ভালো - কোন গ্রিন টি ভালো

গ্রীন টি কোনটি ভালো বা কোন গ্রিন টি ভালো এমন প্রশ্ন সচরাচর অনেকেই করে থাকেন। এমন প্রশ্ন টা করা স্বাভাবিক কারণ বাজারে বর্তমানে নকল গ্রিন টিতে ভরে গেছে তবে আমার মতে ভালো গ্রিন টি হলো প্যাক এর চেয়ে গুড়া টা আর ভালো গ্রিন টি এর কথা বলতে গেলে Ispahani Blenders Choice Premium Green Tea ভালো হবে। কারণ ইস্পাহানী গ্রিন টি এর মধ্যে স্বাস্থ্যকর উপাদান রয়েছে এবং এটার স্বাদ ও অনেক ভালো। 

গ্রিন টি দাম কত - ইস্পাহানি গ্রিন টি দাম

আজকের পোস্টের মূল আলোচ্য বিষয় হলো গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা এবং আসল গ্রিন টি চেনার উপায় সম্পর্কে তো ইতোমধ্যে আপনারা গ্রিন টি এর ১০ টি উপকারিতা এবং আসল গ্রিন টি চেনার উপায় জেনে গেছেন এবার জানতে হবে গ্রিন টি এর দাম সম্পর্কে বাজারে বিভিন্ন কোম্পানির গ্রিন টি পাওয়া যায় আপনি যদি ইস্পাহানি গ্রিন টি কিনতে চান তাহলে ১০০ গ্রাম গ্রিন টি এর দাম পড়বে ১৭৫ টাকা। নিচে আপনাদের একটা গ্রিন টি এর দামের চার্ট দিয়ে দিচ্ছি সেটা ভালোভাবে দেখে নিন তাহলে বুঝতে পারবেন গ্রিন টি এর দাম সম্পর্কে। 

গ্রিন টি দাম কত

গ্রীন টি অপকারিতা - গ্রীন টি এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

আজকে আপনাদের জানাতে চেয়েছি গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে ইতিমধ্যে আপনারা উপকারিতা গুলো জানতে পেরেছেন কিন্তু এত উপকারিতা থাকার পরেও গ্রিন টি এর রয়েছে কিছু অপকারিতা বা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া। তাই জেনে নিন গ্রিন টি এর অপকারিতা গুলো সম্পর্কে।  

গ্রীন টি অপকারিতা গুলো হলো:

  • অতিরিক্ত গ্রিন টি পান করার ফলে সেগুলো পাকস্থলীতে গিয়ে অ্যাসিড সৃষ্টি করতে পারে এতে করে পেট খারাপ হতে পারে অথবা ডায়রিয়া হতে পারে।
  • অতিরিক্ত গ্রিন টি পান করার ফলে মাথা ব্যথা করতে পারে। 
  • কারো যদি ক্যাফেইন জাতীয় কোনো কিছু পান করলে এলার্জি হয় তাহলে তাদের জন্য গ্রিন টি খাওয়া অপকারি। 
  • ঘুমানোর আগে গ্রিন টি পান করার ফলে ঘুমের সমস্যা হয়। তাই ঘুমানোর সময় গ্রিন টি পান করবেন না।
  • খালি পেটে গ্রিন টি পান করার ফলে পেট ব্যথা করতে পারে। সেজন্য গ্রিন টি কখনোই খালি পেটে খাবেন না।
  • গ্রিন টি উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে কিন্তু খালি পেটে বা অতিরিক্ত গ্রিন টি পান করলে রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে এতে করে স্বাস্থ্যঝুকি রয়েছে। 
  • যাদের আলসারের সমস্যা রয়েছে তাদের জন্য গ্রিন টি পান করা ক্ষতিকর। আলসারের রোগিরা যদি গ্রিন টি পান করে তাহলে আলসার এর সমস্যা বেড়ে যায় তাই তারা গ্রিন টি পান করবেন না।
  • যাদের কোষ্ঠকাঠিন্য এর সমস্যা রয়েছে তাদের জন্য গ্রিন টি পান করা ঠিক নই তাই যাদের এই সমস্যা রয়েছে তারা গ্রিন টি পান করবেন না।
এইগুলোও মূলত গ্রিন টি এর অপকারিতা। আর কোনো কিছু অতিরিক্ত ভালো নই তাই গ্রিন টি এর উপকারিতা পেতে নিয়ম মেনে পরিমাণ মতো গ্রিন টি পান করবেন। তাহলে ভালো উপকারিকা পাবেন। আশা করছি আজকের পোস্ট পড়ে গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে পারলেন। 

গ্রীন টি সম্পর্কে প্রায়শই জিজ্ঞাসিত কিছু প্রশ্ন ও উত্তর | FAQs

প্রশ্ন: ফল খাওয়ার পর গ্রিন টি খাওয়া যাবে কি?

উত্তর: হালকা ফল খাওয়ার পর গ্রিন টি না পান করাই ভালো তবে সকালে নাস্তা করার পর কলা খেয়ে কিছুক্ষণ পর গ্রিন টি পান করতে পারেন তাহলে কোনো সমস্যা নেই।

প্রশ্ন: পানি ফুটানোর কতদিন পর গ্রিন টি বানানো যায়? 

উত্তর: পানি ফুটানোর পরে কয়েক মিনিট রেখে দিতে হবে যখন পানি গুলো হালকা ঠান্ডা হবে তখন সেই পানি দিয়ে গ্রিন টি বানাতে পারেন এবং পান করতে পারেন তাহলে ভালো উপকারিকা পাবেন সেই গ্রিন টি পান করে।

প্রশ্ন: ওজন কমাতে দিনে কত কাপ গ্রিন টি খাওয়া উচিত?

উত্তর: ওজন কমানোর জন্য দিনে ২ কাপ গ্রিন টি পান করা উচিত বা প্রয়োজন। তবে আপনার কতটা ক্যাফিন গ্রহণ করার ক্ষমতা রয়েছে তার ওপর নির্ভর করে পরিমাণ কমবেশি হতে পারে। 

প্রশ্ন: গ্রিন টি কি চিনি দিয়ে খাওয়া যায়?

উত্তর: না গ্রিন টি চিনি দিয়ে খাওয়া যায় না। এবং গ্রিন টি দুধ দিয়েও খাওয়া যাবে না। 

প্রশ্ন: আসল গ্রিন টি চেনার উপায়?

উত্তর: আসল গ্রিন টি চেনার উপায় হলো আসল গ্রিন টি হালকা সবুজ রঙের হয়ে থাকে এবং আসল গ্রিন টি এর পাতার আকার বড় হয় এগুলো দেখলেই বুঝতে পারবেন কোনটা আসল গ্রিন টি।   

গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা - আসল গ্রিন টি চেনার উপায়: শেষ কথা 

গ্রীন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা আসল গ্রিন টি চেনার উপায় গ্রিন টি বানানোর নিয়ম ওজন কমাতে গ্রিন টি খাওয়ার নিয়ম গ্রিন টি খাওয়ার সময় গ্রীন টি কোনটি ভালো কোন গ্রিন টি ভালো গ্রিন টি দাম কত ইস্পাহানি গ্রিন টি দাম গ্রীন টি অপকারিতা গ্রীন টি এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে আজকের আর্টিকেলে আলোচনা করা হয়েছে। 

আশা করছি আপনারা এই সকল বিষয়ে ভালোভাবে জানতে পেরেছেন। তারপরেও যদি এই বিষয়ে আরো কিছু জানার থাকে তাহলে কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন এবং এরকম আরো তথ্যমূলক আর্টিকেল পড়তে আমাদের JONOPRIYO BLOG ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করুন। এতক্ষণ আমাদের সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন