মাশরুম চাষ পদ্ধতি - মাশরুম চাষের ট্রেনিং কোথায় হয়

আপনি কি মাশরুম চাষ পদ্ধতি এবং মাশরুম চাষের ট্রেনিং কোথায় হয় এই সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন তাহলে আজকের আর্টিকেলটি আপনার জন্য। মাশরুম অনেকের পছন্দের একটি খাবার বর্তমানে বাংলাদেশে মাশরুম চাষ অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই আপনিও যদি মাশরুম চাষ করতে চান তাহলে প্রথমে আপনাকে জানতে হবে মাশরুম চাষ পদ্ধতি। তাহলে চলুন আজকের এই আর্টিকেল থেকে বিস্তারিতভাবে জেনে নেওয়া যাক মাশরুম চাষ পদ্ধতি গুলো।

মাশরুম চাষ পদ্ধতি
মাশরুম চাষ পদ্ধতি মাশরুম চাষের ট্রেনিং কোথায় হয় মাশরুম বীজের দাম কত এই সকল বিষয়ে বিস্তারিত জানার জন্য পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়ুন।

মাশরুম চাষ পদ্ধতি

মাশরুমে একটি প্রোটিনযুক্ত খাবার এবং মাশরুমের অনেক ঔষধি গুন রয়েছে। বর্তমানে মাশরুম চাষ করে অনেকে বেশ লাভবান হচ্ছেন কারণ মাশরুম চাষ করতে কোন জমির প্রয়োজন হয় না এটা আপনি বাড়িতেই চাষ করতে পারবেন। বর্তমানে মাশরুম চাষ অনেক লাভজনক তাই অনেকে মাশরুম চাষ করতে চান সেজন্য আজকে জেনে নিন মাশরুম চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে এবং শুরু করে দিন মাশরুম চাষ। মাশরুম চাষ পদ্ধতি গুলো নিচে বিস্তারিত ভাবে দেওয়া হল। 

বাড়িতে সহজ পদ্ধতিতে মাশরুম চাষ করার জন্য তিনটি উপকরণ প্রয়োজন হবে একটি হল খড়, পলিথিন ব্যাগ এবং মাশরুম বীজ। এগুলো সংগ্রহ করার পরে খড়গুলো এক থেকে দেড় ইঞ্চি করে কেটে নিবেন তারপরে খড়গুলোকে জীবাণুমুক্ত করার জন্য একটি পরিষ্কার পাত্রের মধ্যে পানি এবং চুন দিবেন সেই চুন মেশানো পানির মধ্যে খড়গুলো দিবেন। তারপরে খড়গুলোকে ১২/১৪ ঘন্টা পানির মধ্যে ভিজিয়ে রাখবেন। অথবা আপনারা চাইলে আর একটি পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন সেটা হল গরম পানির মধ্যে খড় গুলো দিয়ে ৫ থেকে ৬ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখতে পারেন।

আরো পড়ুন: বস্তা আদা চাষ পদ্ধতি ২০২৩ - আদা বীজ কোথায় পাব

তারপরে খড়গুলো ভালোভাবে ভিজে গেলে সেগুলো পানির মধ্যে থেকে তুলে নিতে হবে এবং ভালো করে পানি গুলো ঝরিয়ে ফেলতে হবে এবং সেগুলো খড় রোদে দিয়ে শুকিয়ে নিতে হবে তবে খেয়াল রাখবেন খড় যেন হালকা হালকা নরম থাকে একেবারে শুকিয়ে ফেলা যাবে না।

এরপরে মাশরুমের বেড তৈরি করে নিতে হবে সেজন্য একটি পাতলা এবং নরম পলিথিন নিবেন তারপরে খড়গুলোকে সেই পলিথিন ব্যাগের মধ্যে ভরে দিবেন তবে একেবারে ভরে দিবেন না হালকা করে খড় দিবেন এবং চেপে চেপে ভেতরে থাকা বাতাসগুলো বাইর করে দিবেন। তারপরে খড় ভরবেন এবং মাঝে মাঝে মাশরুমের স্পন বা বীজ দিবেন এবং তার উপরে আবার খড় দিবেন আবার একটু খড় দেওয়ার পরে মাশরুমের স্পন দিবেন এভাবে কয়েকটি ধাপে ভালোভাবে মাশরুমের স্পন এবং খড় দিয়ে পলিথিন ভালোভাবে ভরে নিবেন। 

কয়েকটি লেয়ারে মাশরুমের বীজগুলো এবং খড়গুলো ভালোভাবে দিবেন দিয়ে হালকা চাপ দিয়ে পলিথিনের ভিতর থাকা বাতাস গুলো বের করে নিবেন। তারপরে ভালোভাবে পলিথিনের মুখটি বন্ধ করে দিতে হবে সেজন্য কোন কিছু দিয়ে পলিথিনের মুখ বেঁধে দিবেন যাতে করে কোনভাবেই ভিতরে বাতাস প্রবেশ না করতে পারে।

পলিথিনের মুখ বন্ধ করে দেওয়ার পরে চিকন কোন সূচের মাধ্যমে পলিথিন বিভিন্ন জায়গায় ফুটো করে দিবেন এবং যে জায়গাগুলোতে ফুটো করবেন সেই জায়গা গুলোতে হালকা করে তুলো গুঁজে দিবেন।তারপরে মাশরুমের বেড গুলো দড়ি দিয়ে ভালো করে ঝুলিয়ে রাখবেন। আর মাশরুমের বেড গুলো এমন জায়গায় রাখবেন যেখানে সরাসরি সূর্যের আলো না লাগে। তবে হালকা হালকা বাতাস লাগে এমন জায়গায় রাখবেন।

এভাবে মাশরুমের বেড গুলো রেখে দিবেন এবং ১৫ দিন পরে দেখবেন এগুলোর মধ্যে অনেক পরিবর্তন এসেছে তখন মাশরুমের বেডের উপর হালকা হালকা পানি স্প্রে করবেন। কিন্তু 15 দিন আগে কোন কিছু আর করবেন না ১৫ দিন পরে প্রথম জলের স্প্রে করা শুরু করবেন। এবং ১৫ দিন পরে তুলো গুলো বের করে নিবেন তারপরে সকাল বিকাল জলের স্প্রে করবেন। 

তারপরে ৩৫ দিন পরে দেখতে পাবেন একটু একটু করে মাশরুমের বীজগুলো থেকে গুটি গুলো বের হয়ে আসবে। তারপরে প্রায় ৪০ দিন পরে দেখবেন মাশরুমের গুটি গুলো বেশ বড় হয়ে গেছে। এই সময় মাশরুমের গুটি গুলো খুব দ্রুত বৃদ্ধি পায় সেজন্য এ সময় আবার সকাল বিকাল পানি স্প্রে করবেন। আর যদি দেখেন মাশরুম গুলো কালো কালো হয়ে যাচ্ছে তাহলে ছত্রাকের আক্রমণ হতে পারে তাই তখন ভিনেগার মেশানো জল স্প্রে করবেন।

তারপরে প্রায় ৪৫ দিন পরে দেখবেন মাশরুমগুলো বেশ বড় বড় হয়েছে গেছে তখন সেই মাশরুম গুলো খাওয়ার উপযোগী হয়ে যাবে। তখন মাশরুম গুলো আস্তে করে ধরে মাশরুমের বেড থেকে তুলে নিবেন। এভাবেই আপনারা খুব সহজে বাড়িতে মাশরুম চাষ করতে পারবেন। আশা করছি মাশরুম চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে পারলেন এই বিষয়ে যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন।  

মাশরুম বীজ তৈরির পদ্ধতি

উপরের অংশ আপনাদের মাশরুম চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে জানিয়েছি তাই আপনি যদি উপরের অংশগুলো ভালোভাবে পড়েন তাহলে মাশরুম বীজ তৈরির পদ্ধতি গুলো ভালোভাবে জানতে পারবেন। মাশরুম বীজ তৈরি করার পদ্ধতি অনেক সহজ এটা যে কেউ খুব সহজেই করতে পারবে। 

আরো পড়ুন: পাঙ্গাস মাছ চাষ পদ্ধতি ২০২৩ - নদীর পাঙ্গাস মাছ চেনার উপায়

মাশরুম বীজ বাসায় তৈরি করতে পারবেন না সেজন্য আপনাকে মাশরুম চাষের বড় বড় খামার থেকে বীজ সংগ্রহ করতে হবে এবং সেগুলো বীজ বাসায় কিনে এনে সেগুলো দিয়ে মাশরুম চাষ করতে পারবেন। কিভাবে মাশরুম চাষ করবেন বা মাশরুম চাষ পদ্ধতি উপরের অংশ দিয়ে দিয়েছি সেটা ভালো করে পড়ুন এবং সে অনুযায়ী মাশরুম চাষ করুন ইনশাআল্লাহ খুব ভালো ফলাফল পাবেন এবং মাশরুম চাষ করে লাভবান হতে পারবেন। 

মাশরুম চাষের ট্রেনিং কোথায় হয়

প্রিয় বন্ধুরা উপরের অংশ আপনারা জানতে পারলেন মাশরুম চাষ পদ্ধতি কিন্তু অনেকে জানতে চেয়ে থাকেন মাশরুম চাষের ট্রেনিং কোথায় হয় তাই এই অংশে আপনাদের জানাবো মাশরুম চাষের ট্রেনিং কোথায় হয়। আপনি যদি মাশরুম চাষ করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে মাশরুম চাষের ট্রেনিং নিতে হবে কারণ আপনি যদি মাশরুম চাষের ট্রেনিং নেন তাহলে মাশরুম চাষ সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবেন যেটা আপনার মাশরুম চাষের জন্য অনেক বেশি প্রয়োজনীয়।

বিভিন্ন এলাকায় মাশরুম চাষের ট্রেনিং হয়ে থাকে তবে আপনি যদি সরকারি ভাবে মাশরুম চাষের ট্রেনিং  নিতে চান তাহলে নিতে পারেন মাশরুম চাষের জন্য সরকারি উদ্যোগে ট্রেনিং এর ব্যবস্থা করা হয়েছে আর এই মাশরুম চাষের ট্রেনিং সরকারি ভাবে নিতে চাইলে ঢাকার সাভারে কৃষি সম্প্রসারণ অফিসে মাশরুম চাষ সেন্টার তৈরি করা হয়েছে। 

আরো পড়ুন: মাশরুম এর ১৮টি উপকারিতা - মাশরুম খাওয়ার নিয়ম 

সেখানে বিভিন্ন জেলার লোকজনদের মাশরুম চাষের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়ে থাকে। কিন্তু সেখানে মাশরুম চাষের ট্রেনিং নেওয়ার আগে আপনাকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এবং এই প্রশিক্ষণের সময় তিন দিন এই তিন দিনে আপনাকে মাসুম চাষের সমস্ত কিছু বুঝিয়ে দেওয়া হবে এবং সরকারিভাবে সার্টিফিকেট দেওয়া হবে। সেখান থেকে আপনি ট্রেনিং শেষ করে বাসায় এসে মাশরুম চাষ শুরু করে দিতে পারবেন।  

মাশরুম বীজের দাম কত 

উপরের অংশে আপনারা জানতে পারলেন মাশরুম চাষ পদ্ধতি এবং মাশরুম চাষের ট্রেনিং কোথায় হয় এই সম্পর্কে কিন্তু অনেকে জানতে চেয়ে থাকেন মাশরুম বীজের দাম কত? মাশরুমের বিভিন্ন রকম জাত রয়েছে সেজন্য বিভিন্ন রকম জাতের বিভিন্ন রকম দাম হয়ে থাকে তবে আপনি যদি মাশরুম বীজ কিনতে চান তাহলে প্রতি কেজি মাশরুম ব্রিজের দাম দাম ৬০ থেকে ৭০ টাকা। 

আর আপনি যদি ঢাকা সাভার থেকে মাশরুম বীজ কিনতে চান তাহলে ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজি পেতে পারেন। তবে মনে রাখবেন এখানে আমরা শুধু একটা আইডিয়া দেওয়ার চেষ্টা করলাম বিভিন্ন জাত অনুযায়ী মাশরুম বীজের দাম কম বেশি হতে পারে এবং বিভিন্ন অঞ্চলে দাম বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে তাই আপনার আশেপাশে বা আপনার এলাকায় কি রকম দাম সেটা আগে ভালো করে জেনে নেবেন তারপরে মাশরুম বীজ ক্রয় করবেন। 

মাশরুম চাষ পদ্ধতি - মাশরুম চাষের ট্রেনিং কোথায় হয়: শেষ কথা

প্রিয় বন্ধুরা আজকের আর্টিকেলে আপনাদের জানিয়েছি মাশরুম চাষ পদ্ধতি মাশরুম চাষের ট্রেনিং কোথায় হয় মাশরুম বীজের দাম কত এ সকল বিষয় সহ মাশরুম চাষ সম্পর্কিত আরো কিছু বিষয়ে। আশা করছি আজকের আর্টিকেলটি পড়ে আপনারা মাশরুম বীজের দাম কত মাশরুম চাষ পদ্ধতি মাশরুম চাষের ট্রেনিং কোথায় হয় এ সকল বিষয়ে ভালোভাবে জানতে পেরেছেন। 

তারপরেও যদি এই বিষয়ে আপনাদের আর কোন কিছু জানার থাকে তাহলে কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন এবং এরকম আরো তথ্যমূলক আর্টিকেল পেতে আমাদের ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করুন। এতক্ষণ আমাদের সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন