আখের রসের ১২ টি উপকারিতা - আখের রসের অপকারিতা

আখের রস আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী আজকে আপনাদের জানাবো আখের রসের ১২ টি উপকারিতা সম্পর্কে। আখের রসের মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। আখের রসের ১২ টি উপকারিতা সম্পর্কে যদি জানতে চান তাহলে পুরো আর্টিকেলটি পড়তে হবে। তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক আখের রসের ১২ টি উপকারিতা সম্পর্কে।
আখের রসের ১২ টি উপকারিতা

আখের রসের ১২ টি উপকারিতা আখের রস খাওয়ার নিয়ম আখের রসের অপকারিতা এ সকল বিষয় সহ এই সম্পর্কিত আরো কিছু বিষয়ে বিস্তারিতভাবে জানার জন্য পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়ে ফেলুন।

পেজ সূচিপত্রঃ আখের রসের ১২ টি উপকারিতা - আখের রসের অপকারিতা 

আখের রসের ১২ টি উপকারিতা 

আখের রস আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী এবং আখের রস অনেক ঠান্ডা হয়ে থাকে তাই এটা আমাদের স্বাস্থ্যের পাশাপাশি ত্বকের জন্য উপকারী। আমরা সবাই জানি যে আখ দিয়ে চিনি এবং গুড় তৈরি করা হয় কিন্তু এর পাশাপাশি আখের রস হয় যেটা আমরা পান করতে পারি। আখের রসের বেশ কিছু উপকারিতা রয়েছে তার মধ্যে আখের রসের ১২ টি উপকারিতা এখন আপনাদের জানাবো। জেনে রাখুন আখের রসের ১২ টি উপকারিতা গুলো সম্পর্কে।

  1. এনার্জি বৃদ্ধি করে
  2. ত্বক সুন্দর রাখে
  3. ডায়াবেটিস দূর করে
  4. শরীরের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে
  5. কিডনি ভালো রাখে
  6. হজম শক্তি বৃদ্ধি করে
  7. ওজন কমায়
  8. ক্যান্সার প্রতিরোধে
  9. প্রসাবে জ্বালাপোড়া দূর করে
  10. ক্লান্তি দূর করে
  11. গর্ভধারণের উপকারী
  12. হাড় ও দাঁত মজবুত করে

এনার্জি বৃদ্ধি করে - সারাদিন বিভিন্ন কাজ বা অফিস করার পরে শরীরের এনার্জি অনেক কমে যায় আর সেই সময় শরীরের এনার্জি ফিরিয়ে আনতে আখের রস খেতে পারেন। আখের রসের মধ্যে রয়েছে পটাশিয়াম, কার্বোহাইড্রেট, আয়রন এবং প্রোটিন যা শরীরের এনার্জি বৃদ্ধি করতে দ্রুত কাজ করে। এতে করে আবার দ্রুত শরীরের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়ে যায়।

ত্বক সুন্দর রাখে - অনেকেরই অল্প বয়সে ত্বকের মধ্যে বয়সের ছাপ পড়ে যায় আর এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চাইলে আখের রস অনেক উপকারী। শরীরের ভিতর যখন ক্ষতিকর টক্সিন বৃদ্ধি পায় তখন ত্বকের অবস্থা অনেক খারাপ হয়ে যায় তাই নিয়মিত যদি আখের রস খেতে পারেন তাহলে এই ক্ষতিকর টক্সিন শরীর থেকে বের হয়ে যাবে এবং ত্বক সুন্দর রাখবে।

ডায়াবেটিস দূর করে - আখের রস ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অনেকটা উপকারী। নিয়মিত নিয়ম মেনে যদি ডায়াবেটিস রোগীরা আখের রস খায় তাহলে ডায়াবেটিস দূর করার জন্য এটা অনেক কার্যকরী হবে। তবে ডায়াবেটিস রোগীদের আখের রস খাওয়ার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন। 

শরীরের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে - আখের রসের ১২ টি উপকারিতার ভেতর আরেকটি সেরা উপকারিতা হলো শরীরের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। আখের রসের মধ্যে অনেক উপাদান রয়েছে তাই আপনার যদি অতিরিক্ত ক্লান্তি লাগে এবং কাজ করার শক্তি না পান তাহলে আখের রস খাবেন দেখবেন শরীরের কার্যক্ষমতা অনেকটা বৃদ্ধি পেয়ে গেছে।

আরো পড়ুনঃ গ্রিন টি এর ১০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা - আসল গ্রীন টি চেনার উপায়

কিডনি ভালো রাখে - আখের রস হল পানি জাতীয় তাই এটা যদি আপনি নিয়মিত খেতে পারেন তাহলে এতে করে এই আখের রস লিভার এবং কিডনি ভালো রাখবে। আর আপনার যদি লিভার এবং কিডনি ভালো থাকে তাহলে আপনি সুস্থ থাকতে পারবেন তাই কিডনি ভালো রাখতে আখের রস খেতে পারেন।

হজম শক্তি বৃদ্ধি করে - আখের রসের মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ পটাশিয়াম আপনার যদি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থাকে এবং যে কোন খাবার খাওয়ার পরে সেটা যদি তাড়াতাড়ি হজম না হতে চাই তাহলে হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে চাইলে আখের রস খাওয়া শুরু করতে পারেন। আখের রস হজম শক্তি বাড়াতে বেশ কার্যকরী। 

ওজন কমায় - যারা অতিরিক্ত ওজন নিয়ে দুশ্চিন্তা করছেন তাদের জন্য আখের রস অনেক উপকারী।যাদের ওজন অনেক বেশি তারা যদি নিয়মিত আখের রস খেতে পারেন তাহলে এটা ওজন কমাতে অনেক ভালো কার্যকরী হবে। তাই যাদের ওজন অনেক বেশি ওজন কমাতে আখের রস খাবেন। 

ক্যান্সার প্রতিরোধে - ক্যান্সার প্রতিরোধ করার জন্য আখের রস অত্যন্ত বেশি উপকারী। বর্তমানে ক্যান্সারের রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়ে চলেছে তাই আপনি যদি ক্যান্সার থেকে বাঁচতে চান এবং মুক্ত থাকতে চান তাহলে আজ থেকে আখের রস খাওয়া শুরু করে দিতে পারেন ইনশাআল্লাহ ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি থাকবে না। 

প্রসাবে জ্বালাপোড়া দূর করে - অনেক সময় পানি কম খাওয়ার কারণে এবং শরীর অতিরিক্ত দুর্বল হয়ে গেলে প্রসাবে জ্বালাপোড়া হয়ে থাকে যা সহ্য করা অনেক কষ্টকর। তাই এ প্রসাবের জ্বালাপোড়া দূর করতে আখের রস অনেক উপকারী। আপনার যদি প্রসাবে জ্বালাপোড়া করে তাহলে আখের রস খাবেন প্রসাবে জ্বালাপোড়া দূর হয়ে যাবে। 

ক্লান্তি দূর করে - অতিরিক্ত কাজ করার পরে শরীর অনেক ক্লান্ত হয়ে যায় তাই এই অতিরিক্ত ক্লান্তি দূর করার জন্য আখের রস হতে পারে অনেক উপকারী। কাজ করার পরে যখন ক্লান্ত হয়ে যাবেন তখন এক গ্লাস আখের রস খেয়ে নিবেন দেখবেন ক্লান্তি অনেকটা দূর হয়ে গেছে। 

গর্ভধারণের উপকারী - গর্ভধারণের জন্য আখের রস অনেক উপকারী নিয়মিত আখের রস খেলে এটা মেয়েদের গর্ভধারণের সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে। এবং গর্ভধারণের পরে গর্ভের সন্তানের জন্য আখের রস অনেক ভালো উপকারী। এবং গর্ভবতী মায়ের স্বাস্থ্যের জন্য আখের রস খাওয়া প্রয়োজন। 

হাড় ও দাঁত মজবুত করে - যদি আখের রসের পাশাপাশি আগ দাঁত দিয়ে চিবিয়ে খেতে পারেন তাহলে এটা দাঁত মজবুত করতে সাহায্য করে। আর নিয়মিত আখের রস খেলে শরীরের হাড় মজবুত হয়। তাই হাড় ও দাঁত মজবুত রাখতে নিয়মিত আখের রস খাবেন। এই ছিলো আখের রসের ১২ টি উপকারিতা। 

আখের রস খাওয়ার নিয়ম - আখের রস কখন খাওয়া উচিত

নিচে আমরা জানবো আখের রসের অপকারিতা কিন্তু তার আগে জেনে নিতে হবে আখের রস খাওয়ার নিয়ম কারণ আপনি যদি সঠিক নিয়মে আখের রস খেতে পারেন তাহলে এতে করে উপকারিতা বেশি পাবেন। 

আখের রস খাওয়ার নিয়ম হলো প্রথমে একটি আখ ভালোভাবে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিবেন এবং সেটা থেকে রস বের করে নিবেন রস বের করে নেওয়ার পরে রসগুলো ভালোভাবে ছেঁকে নিবেন ছেঁকে নেওয়ার পরে সেই আখের রস খাবেন। আখের রস কখন খাওয়া উচিত আখের রস খাওয়া উচিত বিকেল টাইমে রাতের বেলা আখের রস না খাওয়াই ভালো এছাড়াও দুপুরের সময় আখের রস খেতে পারেন। এই নিয়মগুলো মেনে যদি আখের রস খান তাহলে ভালো উপকারিতা পাবেন। 

আখের রসের পুষ্টিগুণ

আখের রস আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী কারণ এর মধ্যে রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ। আপনি যদি নিয়মিত আখের রস খেতে পারেন তাহলে এ সকল পুষ্টিগুণ পেয়ে থাকবেন আখের রসের মধ্যে যেসব পুষ্টিগুণ রয়েছে সেগুলো নিচে দেওয়া হলো।

 আখের রসের পুষ্টিগুণ গুলো হলো: 

  • কার্বোহাইড্রেট 
  • ক্যালরি
  • ক্যালসিয়াম
  • পটাসিয়াম 
  • ম্যাঙ্গানিজ
  • ম্যাগনেশিয়াম
  • আয়রন
  • প্রোটিন
  • অ্যামাইনো অ্যাসিড
  • রাইবোফ্লবিন
  • জিংক
  • থিয়ামিন

গর্ভাবস্থায় আখের রসের উপকারিতা

আখের রস আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপাকারি কিন্তু গর্ভাবস্থায় আখের রসের উপকারিতা রয়েছে কিনা এবং খাওয়া যাবে কিনা এই বিষয়ে এখনও অনেকেরই অজানা। আখের রসের মধ্যে অনেক পুষ্টিগুন রয়েছে যেমন ভিটামিস সি, ভিটামিন এ, বিটামিন বি ১, বি ২, বি ৩ সহ আরো পুষ্টিগুন। এবার জেনে নিন গর্ভাবস্থায় আখের রসের উপকারিতা গুলো।

১. গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা বেশি দেখা দেয় তাই গর্ভাবস্থায় আখের রস খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। 

২. গর্ভাবস্থায় অনেক মহিলার দাঁতের সমস্যা দেখা দেয় আর এই দাঁতের সমস্যা দূর করতে আখের রসের মধ্যে রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম ও ক্যালসিয়াম। তাই দাঁতে সমস্যা হলে আখের রস খাবেন।

আরো পড়ুনঃ আমলকি খাওয়ার ২১ টি উপকারিতা - আমলকি খাওয়ার অপকারিতা

৩. গর্ভাবস্থায় মেয়েদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় এবং বিভিন্ন সমস্যা সৃষ্টি হয়ে থাকে তাই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে গর্ভাবস্থায় আখের রস খাবেন।

৪. গর্ভাবস্থায় আখের রস খেলে গর্ভবতী নারীর লিভার ও কিডনি ভালো থাকে।

৫. গর্ভাবস্থায় গর্ভবতী নারীদের বিভিন্ন রকম সমস্যা থেকে মুক্ত রাখতে চাইলে এবং শরীরে জমা ছত্রাক, ব্যাকটেরিয়া আক্রমণ থেকে মুক্ত রাখতে আখের রস বেশ উপকারী। 

গর্ভবতী মহিলার আখের রসে উপকারিতা থাকলেও যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে তাদের জন্য আখের রস না খাওয়া ভালো। আখের রসের মধ্যে চিনি থাকে তাই এটি বেশি পরিমাণ খাওয়া ঠিক না। তাই সাবধানতা মেনে আখের রস খাবেন। 

খালি পেটে আখের রস খেলে কি হয়

গরমে আখের রস খেলে অনেকটা ভালো লাগে আখের রস খেতে যেমন সুস্বাদু তেমনি এর মধ্যে রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ এবং উপকারিতা। ইতিমধ্যে আপনাদের জানিয়েছি আখের রসের ১২ টি উপকারিতা সম্পর্কে কিন্তু অনেকে প্রশ্ন করে থাকেন খালি পেটে আখের রস খেলে কি হয়? খালি পেটে যদি আখের রস পান করেন তাহলে এটা বিভিন্ন রকম উপকার করে থাকে সেগুলো হলো। 

  • খালি পেটে আখের রস খেলে এটা শরীরের টক্সিন দূর করে দিয়ে এনার্জি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। 
  • খালি পেটে আখের রস খেলে অতিরিক্ত ক্লান্তি এবং দুর্বলতা দূর করতে সাহায্য করে। 
  • খালি পেটে আখের রস খাওয়া যকৃতের জন্য অনেক উপকারী এটা যকৃতের বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে।
  • খালি পেটে আখের রস খেলে ওজন কমাতে এটা অনেক বেশি কার্যকরী। খালি পেটে আখের রস খেলে শরীরে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কম হয়।
  • খালি পেটে আখের রস খেলে শরীরের শক্তি বৃদ্ধি পায় এবং খালি পেটে আখের রস খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।
তবে খালি পেটে আখের রস খাওয়ার উপকারিতা থাকলেও নিয়ম মেনে খাওয়া প্রয়োজন। এবং যাদের ডায়াবেটিসের সমস্যা রয়েছে তাদের জন্য আখের রস বেশি পরিমাণ খাওয়া ঠিক নয় আর যদি খেতে হয় তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী খাওয়া প্রয়োজন। আখের রস থেকে যদি উপকারীতা পেতে চান তাহলে নিয়ম মেনে খাওয়ার চেষ্টা করবেন।

আখের রস খেলে কি ডায়াবেটিস বাড়ে

আখের রসের মধ্যে চিনি থাকে তাই অনেকে মনে করে থাকেন আখের রস খেলে ডায়াবেটিস অনেক বেশি হয়ে যায় তবে এটা কিছুটা ভুল ধারণা। যাদের ডায়াবেটিসের সমস্যা রয়েছে তারা আখের রস খেতে পারবে এবং ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য আখের রস উপকারী। যদি ডায়াবেটিস রোগীরা পরিমাণ মতো আখের রস খেতে পারে তাহলে এটা ডায়াবেটিস কমাতে অনেকটা সাহায্য করে কারণ আখের রসের মধ্যে জি আই এর পরিমাণ কম থাকে। 

আরো পড়ুনঃ পান পাতা ১০ টি উপকারিতা -পানের ছবি

যাদের ডায়াবেটিসের সমস্যা রয়েছে তারা যদি অল্প পরিমাণ আখের রস খাই তাহলে ডায়াবেটিস বাড়বে না ডায়াবেটিস কমবে কিন্তু অতিরিক্ত পরিমাণ বেশি আখের রস খেলে এটা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অনেক ক্ষতিকর তাই ডায়াবেটিসের সমস্যা কমানোর জন্য অল্প পরিমাণ আখের রস খাবেন তাহলে কোন সমস্যা হবে না। আর যদি এ বিষয়ে আপনার কোন সন্দেহ থাকে তাহলে একজন ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে তারপরে খেতে পারেন।  

আখের রসের অপকারিতা

আখের রসের এতো উপকারিতা থাকার পরেও এর রয়েছে কিছু অপকারিতা। অতিরিক্ত পরিমাণ আখের রস খাওয়ার ফলে বিভিন্ন রকম অপকারিতা দেখা দিতে পারে। আখের রসের অপকারিতা গুলো কি কি তা নিচে দেওয়া হলো। 

১। রাস্তাঘাটে আখের রস কিনতে পাওয়া যায় এগুলো অনেক সময় অস্বাস্থ্যকর হয়ে থাকে কারণ এগুলোতে ধুলা ময়লা পড়ে থাকে তাই এই আখের রস হতে পারে স্বার্থের জন্য ক্ষতিকর এবং পেটের ক্ষতি করে।

২। যাদের ডায়াবেটিসের সমস্যা রয়েছে তাদের জন্য আখের রস অতিরিক্ত পরিমাণ খাওয়া কিছুটা ক্ষতিকর ডায়াবেটিস রোগীরা অতিরিক্ত পরিমাণ আখের রস খেলে ডায়াবেটিস বেড়ে যেতে পারে।

৩। অনেক সময় যারা আখের রস বিক্রি করে তারা টাটকা আখ থেকে রস বের করে না আর সেজন্য সেই আখের রস খাওয়া কিছুটা বিষাক্ত। তাই যদি আখের রস খেতে চান তাহলে টাটকা আখ কিনে বাসায় রস করে খেতে পারেন। 

৪। আখের রস ঠান্ডা হয়ে থাকে তাই শীতকালে আখের রস খেলে ঠান্ডা লেগে যেতে পারে এবং মাথাব্যথা সর্দি লেগে যেতে পারে। তাই শীতকালে আখের রস কম খাওয়ার চেষ্টা করবেন। আর খেলেও কম পরিমাণ খাবেন।

৫। আখের রসের মধ্যে রয়েছে Policosanol নামক একটি উপাদান যা রক্ত পাতলা করে দিতে অর্থাৎ রক্ত জমাট বাঁধতে বাধা দেয় যার ফলে রক্ত পাতলা হয়ে যায় এবং শরীর থেকে বিভিন্ন মাধ্যমে রক্তক্ষরণ হয়ে থাকে।

৬। একবারে অতিরিক্ত পরিমাণ আখের রস খাওয়ার কারণে ঘুমের সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে এবং মাথা ব্যথা করতে পারে তাই অতিরিক্ত পরিমাণ আখের রস খাবেন না।

৭। আখের রসের মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি তাই অতিরিক্ত আখের রস খাওয়ার কারণে শরীরের ওজন অনেক বেশি হয়ে যেতে পারে। তাই এই সমস্যাগুলো থেকে মুক্ত থাকতে চাইলে অবশ্যই পরিমাণ মতো নিয়ম মেনে আখের রস খাবেন। আশা করছি জানতে পারলেন আখের রসের অপকারিতা গুলো। 

আখের রস সম্পর্কিত প্রায়শই জিজ্ঞাসিত কিছু প্রশ্ন ও উত্তর | FAQ

প্রশ্ন: খালি পেটে আখের রস খেলে কি হয়?

উত্তর: খালি পেটে আখের রস খেলে শরিরের এনার্জি বৃদ্ধি পায়, ক্লান্তিভাব দূর করে, পেটের সমস্যা দূর করে, ওজন কমায়, কর্মশক্তি বৃদ্ধি করে।

প্রশ্ন: আখের রস কি ক্ষতিকর?

উত্তর: আখের রসের অনেক উপকারিতা রয়েছে তবে অতিরিক্ত পরিমাণ আখের রস পান করার ফলে মাথা ঘুরতে পারে, পেটের সমস্যা হতে পারে, অনিদ্রা, মাথা ব্যথা, ডায়াবেটিস বৃদ্ধি এবং ওজন বৃদ্ধি পেতে পারে।

প্রশ্ন: চিনি কোথা থেকে আসে?

উত্তর: চিনি আসে আখের রস থেকে প্রথমে আখ থেকে রস বের করে নেওয়া হয় তারপর এগুলো রস রিফাইন্ড করে সেখান থেকে চিনি তৈরি করা হয়ে থাকে।

প্রশ্ন: আখ খেলে ওজন বাড়ে কি না?

উত্তর: আখের রসের মধ্যে রয়েছে ক্যালরি, কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন সহ বিভিন্ন পুষ্টিগুন। আখের মধ্যে চর্বি নেই তাই আখ খেলে ওজন বাড়ে না। তবে অতিরিক্ত পরিমাণ খাওয়ার ফলে বিভিন্ন সমস্যা হতে পারে।

প্রশ্ন: ভারতের কোথায় আখ চাষ হয়?

উত্তর: ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে আখ চাষ করা হয়ে থাকে সেগুলো হলো: ওড়িশা, তামিলনাড়ু, পাঞ্জাব, হরিয়ানা, গুজরাট, গোয়া ও অন্ধ্র প্রদেশ। এবং এই রাজ্য গুলোতে আখের চিনিও উৎপন্ন করা হয়।

আখের রসের ১২ টি উপকারিতা - আখের রসের অপকারিতা: শেষ কথা 

আখের রসের ১২ টি উপকারিতা  আখের রসের অপকারিতা আখের রস খাওয়ার নিয়ম আখের রসের পুষ্টিগুণ এ সকল বিষয়ে সহ আখের রস সম্পর্কে অনেক কিছু বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে আশা করছি আপনারা এই সকল বিষয়ে ভালোভাবে জানতে পেরেছেন। 

তারপরও যদি এই বিষয়ে আরো কিছু জানার থাকে তাহলে কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন এবং এরকম আরো তথ্যমূলক আর্টিকেল পড়তে আমাদের জনপ্রিয় ব্লগ ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এতক্ষণ আমাদের সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন