বাতের ব্যথা কমানোর উপায় - বাতের ঔষধের নাম

বাতের ব্যথা কমানোর উপায় যদি জানতে চান তাহলে আজকের আর্টিকেলটি আপনার জন্য। আজকের আর্টিকেলে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করা হবে বাতের ব্যথা কমানোর উপায় এবং বাতের ঔষধের নাম সহ এই সম্পর্কিত আরো অনেক কিছু বিষয়ে। তাহলে চলুন বিস্তারিতভাবে জেনে নেওয়া যাক বাতের ব্যথা কমানোর উপায় সহ এই সম্পর্কিত আরো কিছু বিষয়ে।
বাতের ব্যথা কমানোর উপায়

বাতের ব্যথা কেন হয় বাতের ব্যথা কমানোর উপায় বাতের ঔষধের নাম বাত কত প্রকার ও কি কি এই সকল বিষয়ে আজকের আর্টিকেল আলোচনা করা হবে তাই আপনি যদি এই সকল বিষয়ে জানতে চান তাহলে আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন। 

পোস্ট সূচিপত্রঃ বাতের ব্যথা কমানোর উপায় - বাতের ঔষধের নাম 

বাতের ব্যথা কেন হয়

যাদের বয়স একটু বেশি তারা বেশির ভাগই বাতের ব্যথার সাথে পরিচিত। এবং অনেকেই এই বাতের ব্যথার যন্ত্রণা ভোগ করে থাকে। বাতের ব্যথা হওয়ার অনেক কয়টি কারণ রয়েছে যেমন অস্থি সন্ধিতে যখন ইউরিক এসিড জমে যায় তখন সেই কারণে বাতের ব্যথা হয়। 

আবার বাতের ব্যথা হওয়ার আরো কারণ হলো কারো যদি পারিবারিক ভাবে বাতের ব্যথা থাকে তাহলে সেই পরিবারের পরবর্তীতে যারা আসবে তাদের ও একসময় বাতের ব্যথা হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ ডান চোখ লাফালে কি হয় - চোখ লাফানোর কারণ ও প্রতিকার 

কারো যদি ডায়াবেটিস থাকে তাহলে তার বাতের ব্যথা হতে পারে। ওজন অনেক বেশি হওয়ার ফলে বাতের ব্যথা হয়। কিডনি জনিত কোনো সমস্যা থাকলে বাতের ব্যথা হতে পারে। 

আবার নিয়মিত অ্যালকোহল বা নেশা জাতীয় জিনিস সেবন করার ফলে শরীরের ইউরিক এসিড বের হতে পারে না সেজন্য বাতের ঝুঁকি বাড়ে ব্যথা হয়ে থাকে। 

আবার বাতের ব্যথা হওয়ার আরেকটি কারণ হলো বিভিন্ন রোগের জন্য বিভিন্ন রকম ঔষধ সেবনের ফলে বাতের ব্যথা হয়। এবার চলুন নিচের অংশে জেনে নেওয়া যাক বাতের ব্যথা কোথায় কোথায় হয় সেই সম্পর্কে।

বাতের ব্যথা কোথায় কোথায় হয়

শরীরে বিভিন্ন কারণে ব্যথা হতে পারে তবে যাদের বয়স একটু বেশি তাদের বাতের ব্যথা হয়ে থাকে বেশি। বাতের ব্যথা কোথায় কোথায় হয়? বাতের ব্যথা সাধারণত হয়ে থাকে শরীরের বিভিন্ন জয়েন্টে যেমন হাটুতে বাতের ব্যথা হয়, ঘাড়ে হয় কোমরে বাতের ব্যথা হয়, শরীরে মাংসপেশিতে বাতের ব্যথা হয়, হাতের কবজিতে হয়ে থাকে। 

যারা মধ্যবয়সী তাদের বিশেষ করে বাতের ব্যথা হয়ে থাকে তবে কারো যদি কোমরে বাতের ব্যথা হয় তাহলে এটা বড় ধরনের জটিল সমস্যা হতে পারে। কোমরে ব্যথা হলে তা অবহেলা করার সুযোগ নেই দ্রুত চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে সেটা বাত ব্যথা হোক বা যে কারণেই ব্যথা হোক। যদি অবহেলা করে চিকিৎসা গ্রহণ না করেন তাহলে যদি ২ থেকে ৩ মাসের বেশি সময় পার হয়ে যায় তাহলে পরবর্তীতে ব্যথা সহজে ভালো করা যায় না। 

বাত কত প্রকার ও কি কি

নিচে আমরা জানবো বাতের ব্যথা কমানোর উপায় এবং বাতের ঔষধের নাম সম্পর্কে কিন্তু তার আগে জেনে নিন বাত কত প্রকার ও কি কি? বাত মূলত অনেক প্রকারের হয়ে থাকে কি কি সেগুলো জেনে রাখুন।

  • আমবাত
  • গেঁটে বাত
  • গাট বাত বা ফোলা বাত
  • কটি বাত বা কোমর প্রদাহ বাত
  • সায়াটিকা বাত
  • বাতজ্বর
  • আর্টিকেরিয়া
  • সংক্রামক বাত বা সেপটিক অর্থ্রাইটিস
  • ঘাড়ের বাত
  • স্বন্ধ বাত
  • মেরুদণ্ড প্রদাহ
  • পার্শ্ব বাত
  • এলার্জি বাত

সূত্রঃ Wikipedia 

বাতের ব্যথার লক্ষণ 

কারো যদি বাতের ব্যথা হয় তাহলে বিভিন্ন রকম লক্ষণ বা উপসর্গ দেখা দেয়। কিন্তু বাতের ব্যথার লক্ষণ গুলো কি না জানার ফলে অনেকেই বুঝতে পারে না এটা আসলে বাতের ব্যথা না অন্য কোন ব্যথা। বাতের ব্যথা অনেক অস্বস্তিকর হয়ে থাকে। সেজন্য যখন বাতের ব্যথা হবে তাড়াতাড়ি সেটার চিকিৎসা গ্রহণ করা প্রয়োজন। জেনে রাখুন বাতের ব্যথার লক্ষণ গুলো কি কি?

  • হাতের নখে ব্যথা হওয়া
  • হাতের কব্জিতে এবং হাতের কুনুই তে ব্যথা হওয়া
  • পায়ের গোড়ালি ব্যথা বা পায়ের জয়েন্টে ব্যথা হওয়া
  • শরীরের ওজন কমে যাওয়া 
  • হালকা হালকা জ্বর হওয়া 
  • ব্যথা কমে গেলেও ব্যথার জায়গা ফুলে থাকা
  • হাটতে গিয়ে পায়ে ব্যথা করা
  • বুক ব্যথা করা
  • বসা থেকে উঠতে গেলে কষ্ট হওয়া
  • ভালোভাবে হাটতে না পারা
এই লক্ষণ গুলো যদি কারো ভিতর দেখা দেয় তাহলে হতে পারে তাদের বাত হয়েছে সেজন্য দ্রুত একজন ভালো অর্থোপেডিক ডাক্তার এর কাছে যেতে হবে এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। সেই সাথে বাতের ব্যথা যদি পরিক্ষা করে বুঝা যায় তাহলে রোগীকে রেস্টে থাকতে হবে। 

বাতের ব্যথা কমানোর উপায় - বাতের ব্যথা দূর করার ঘরোয়া উপায় 

এবারের অংশে আপনাদের কিছু বাতের ব্যথা কমানোর উপায় সম্পর্কে বলবো যেগুলো আপনি ঘরে বসেই করতে পারবেন এবং খুব সহজেই বাতের ব্যথা দূর করতে পারবেন। আপনার যদি প্রচন্ড পরিমাণ বাতের ব্যথা হয়ে থাকে তাহলে বাতের ব্যথা কমানোর উপায় গুলো জেনে রাখা প্রয়োজন। তাহলে জেনে রাখুন বাতের ব্যথা কমানোর উপায় বা বাতের ব্যথা দূর করার ঘরোয়া উপায় গুলো সম্পর্কে। 

  • পুষ্টিকর খাবার খাওয়া
  • নিয়মিত ব্যায়াম করা
  • ভিটামিন সি
  • ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড
  • বিশ্রাম নেওয়া
  • ঠান্ডা জল অথবা গরম জলের সেক নেওয়া
  • সাঁতার কাটা
  • খালি পায়ে হাটা

পুষ্টিকর খাবার খাওয়াঃ বাতের ব্যথা কমানোর জন্য প্রথম যে কাজ রয়েছে সেটা হল নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খাওয়া। আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছে যারা বেশিরভাগ সময় পুষ্টিকর খাবার খেতে পারি না আর সে কারণে বাতের ব্যথা হয়ে থাকে। তাই বাতের ব্যথা দূর করতে বেশি বেশি পুষ্টিকর শাক-সবজি ফলমূল এগুলো খাওয়ার চেষ্টা করবেন। তাহলে ইনশাআল্লাহ বাতের ব্যথা ভালো হয়ে যাবে। 

নিয়মিত ব্যায়াম করাঃ বাতের ব্যথা কমানোর উপায় এর মধ্যে সেরা উপায় হল নিয়মিত শরীরচর্চা বা ব্যায়াম করা। সারাদিন কোন কাজ না করে বসে থাকার কারণে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় সমস্যা দেখা দিয়ে থাকে যেমন শরীরের বিভিন্ন জায়গায় রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে এতে করে শরীর ব্যথা করতে পারে সেজন্য নিয়মিত ব্যায়াম বা শরীর চর্চা করলে বাতের ব্যথা দূর হয়ে যায়। 

ভিটামিন সিঃ পেশি ব্যথা বা শরীরে যে কোন ব্যথা নিরাময় করতে ভিটামিন সি অনেক উপকারী সেজন্য বাতের ব্যথা দূর করতে বা শরীরের হাড় মজবুত রাখতে ভিটামিন সি যুক্ত খাবার এবং ফলমূল খান ভিটামিন সি যুক্ত ফল হল কমলালেবু আঙ্গুর ফল অর্থাৎ টক জাতীয় যেগুলো ফল রয়েছে সেগুলোর মধ্যে অনেক ভিটামিন সি রয়েছে এগুলো খাওয়ার চেষ্টা করুন। 

ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিডঃ বাতের ব্যথা কমানোর উপায় এর ভেতর কার্যকরী উপায় হল ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড জাতীয় খাবার খাওয়া। ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড জাতীয় খাবার হল রুই মাছ, স্যামন ফিস,টুনা ফিস সহ আরো অনেক মাছের মধ্যে ওমেগা  থ্রি ফ্যাটি এসিড থাকে যা বাতের ব্যথা দূর করে এবং হাড় মজবুত করে পেশি শক্তি বৃদ্ধি করে সেজন্য এই গুলো মাছ খাওয়ার চেষ্টা করুন।

বিশ্রাম নেওয়াঃ আমাদের যখন বিশ্রামের ঘাটতি দেখা দেয় তখন বিভিন্ন রকম সমস্যা দেখা দিয়ে থাকে। সেজন্য আপনার যদি বাতের ব্যথা হয়ে থাকে তাহলে একটু বেশি বিশ্রাম নিতে হবে। আপনি যদি সঠিকভাবে ঘুমাতে পারেন তাহলে এতে করে শরীর অনেকটা ক্লান্তিবোধ থেকে মুক্ত থাকবে। এতে করে শরীরের ব্যথা অনেকটা কমে যাবে। তবে সারাদিন শুয়ে থাকা যাবে না তাহলে আরো সমস্যা বেশি হবে।

আরো পড়ুনঃ ক্যান্সার থেকে মুক্তির ১০ উপায় - ক্যান্সার এর লক্ষণ 

ঠান্ডা জল অথবা গরম জলের সেক নেওয়াঃ বাতের ব্যথা কমানোর উপায় এর ভেতর সেরা আরো একটি উপায় হল গরম জল এবং ঠান্ডা জল দিয়ে বাতের ব্যথার জায়গায় সেক দেওয়া। প্রথমে একটি পাত্রে ঠান্ডা পানি নিতে হবে ঠান্ডা পানি নেওয়ার পরে সেই পানি বাতের ব্যথার জায়গায় দিতে হবে। এবং তারপরে হালকা কুসুম গরম পানি নিয়ে যেখানে বাতের ব্যথা রয়েছে সেখানে ঢালতে হবে। যদি ডুবিয়ে রাখতে পারেন তাহলে আরো ভালো হয়।

সাঁতার কাটাঃ উপরে আপনাদের বলেছি আগেই বাতের ব্যথা কমানোর জন্য ব্যায়াম করা প্রয়োজন আর সাঁতার কাটা বাতের ব্যথার জন্য অনেক ভালো একটি ব্যায়াম। সেজন্য আপনি যদি বাতের ব্যথা কমাতে চান তাহলে নিয়মিত সাঁতার কাটুন এতে করে আপনার বাতের ব্যথা দূর হয়ে যাবে এবং শরীরের আরও বিভিন্ন রকম কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। শরীর ভালো থাকবে সুস্থ থাকবে।  

খালি পায়ে হাটাঃ বাতের ব্যথা ভালো করার জন্য খালি পায়ে হাটার চেষ্টা করুন। আপনি যদি সবসময় পায়ে জুতা পড়ে থাকেন তাহলে আপনার পায়ে মাটির যে গ্যাস থাকে সেটা যেতে পারে না এতে করে বিভিন্ন রকম সমস্যা দেখা দেয় আর আপনি যদি খালি পায়ে হাঁটতে পারেন তাহলে এতে করে বাতের ব্যথা খুব সহজেই অনেকটা কমে যায়। আর যদি জুতা ব্যবহার করতে চান তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী যেমন জুতা ব্যবহার করতে বলে তেমন জুতা ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। 

এছাড়াও বাতের ব্যথা কমানোর জন্য খেতে পারেন আদা চা, গ্রিন টি, কমলালেবু, আঙ্গুর, বাদাম, আখরোট পালং শাক, ব্রকলি সহ আরো বিভিন্ন রকম পুষ্টিকর খাবার। পুষ্টিকর খাবার যদি নিয়মিত খেতে পারেন তাহলে আপনার বাতের ব্যথা খুব সহজেই ভালো করতে পারবেন। 

কি খেলে বাতের ব্যথা বাড়ে

বাতের ব্যাথা অনেক অস্বস্তিকর এবং অসহ্যকর হয়ে থাকে সেজন্য বাতের ব্যথা কমানোর উপায় ইতোমধ্যে আপনাদের বলেছি নিচে আপনাদের জানাবো বাতের ঔষধের নাম কিন্তু তার আগে এই অংশে জেনে নিন কি খেলে বাতের ব্যথা বাড়ে। কোন খাবার গুলো আপনি খেতে পারবেন না বাতের ব্যথা থাকলে। চলুন জেনে নেওয়া যাক কোন খাবারগুলো বাতের ব্যথা বাড়াতে সাহায্য করে সেগুলো সম্পর্কে। 

১। চিনি জাতীয় খাবার অথবা মিষ্টি জাতীয় খাবার খাওয়ার ফলে বাতের ব্যথা বাড়তে পারে সেজন্য। মিষ্টি জাতীয় খাবার কম খাওয়া ভালো। যাদের বাতের ব্যথা রয়েছে তারা যদি পারেন তাহলে একেবারে এড়িয়ে চলতে পারেন মিষ্টি জাতীয় খাবার। 

২। অতিরিক্ত ফ্যাট জাতীয় খাবার খাওয়ার ফলে বাতের ব্যথা বাড়তে পারে ফ্যাট জাতীয় খাবার গুলো হলো গরুর মাংস এবং বিভিন্ন রকম ফাস্টফুড এগুলো বেশি পরিমাণ খাওয়ার ফলে বাতের ব্যথা বাড়ে সেজন্য এই খাবারগুলো এড়িয়ে চলার চেষ্টা করবেন।  

৩। আমরা জানি যে দুধ খাওয়া শরীরের জন্য অনেক ভালো কিন্তু যাদের বাতেরর ব্যথা রয়েছে তাদের জন্য দুধ খাওয়া যাবে না যদিও খান তাহলে হালকা পরিমাণ খেতে পারেন। বেশি পরিমাণ দুধ বা দুগ্ধ জাতীয় খাবার খেলে বাতের ব্যথা বাড়বে।  

৪। অতিরিক্ত অ্যালকোহল জাতীয় খাবার খাওয়া এবং অতিরিক্ত নেশা জাতীয় দ্রব্য সেবন করার ফলে বাতের ব্যথা অনেকটা বেড়ে যায় সেজন্য অতিরিক্ত অ্যালকোহল জাতীয় খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকবেন। অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় যেগুলো রয়েছে এগুলো বাতের ব্যথা বৃদ্ধি করে। 

৫। কারো যদি বাতের ব্যথা থাকে তাহলে লবণ খাওয়া যাবে না কারণ তরকারি বাদে আপনি যদি এমনিতে কাঁচা লবণ খান তাহলে এতে করে বাতের ব্যথা অনেকটা বেড়ে যাবে। এখানে যেগুলো খাবার সম্পর্কে বলা হলো এগুলো খাবার যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলার চেষ্টা করবেন। 

বাতের ঔষধের নাম - বাত ব্যাথার ঔষধের নাম বাংলাদেশ 

বর্তমানে অনেকেই বাতের ব্যথায় ভুগছেন কিন্তু কোন ভাবেই বাতের ব্যথা ভালো হচ্ছে না সেজন্য এখন আপনাদের জানাবো কিছু বাতের ঔষধের নাম এগুলো যদি আপনি খেতে পারেন তাহলে বাতের ব্যথা অনেকটা কমে যাবে। বাতের ব্যথার জন্য বিভিন্ন রকম ঔষধ রয়েছে চলুন কিছু বাতের ঔষধের নাম জেনে নেওয়া যাক যেগুলো বাতের ব্যথার জন্য অনেক কার্যকরী। 

বাতের ঔষধের নাম নামগুলো হলোঃ Methotrexate, Folix, Diclomol tablet, Dexoforex, Folic acid Tablet,Domperidone Capsule. এগুলো বাতের ব্যথা ভালো করার জন্য অনেক কার্যকরী ঔষধ তারপরেও যেকোনো ঔষধ সেবনের আগে ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন। ইন্টারনেটে যেকোনো ঔষধের নাম দেখে তা নিজ থেকে কিনে খাবেন না। আশা করছি বাতের ঔষধের নাম জানতে পারলেন।

বাত ব্যাথার লতাপাতা ঔষধের নাম 

বাতের ব্যথা ভালো করার জন্য লতাপাতা ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন আকন্দ গাছের পাতা। আকন্দ গাছ আপনারা সবাই হয়তো চিনে থাকেন রাস্তার আশেপাশে হয়ে থাকে। যাদের বাতের ব্যথা রয়েছে তারা আকন্দ গাছের পাতা ছিড়ে নিয়ে আসবেন এসে হালকা করে পাতাটা গরম করবেন গরম করার পরে বাতের ব্যথার জায়গায় সেক দিবেন। 

আকন্দ গাছ

অথবা আরেকভাবে ব্যবহার করতে পারেন আকন্দ গাছের পাতা প্রথমে গাছ থেকে তুলে নিয়ে আসবেন তারপর ভালোভাবে ধুয়ে পিষে নিবেন এবং ব্যথার স্থানে লাগাবেন এভাবে কয়েকদিন ব্যবহার করলে ইনশাআল্লাহ বাতের ব্যথা ভালো হয়ে যাবে। 

আরো পড়ুনঃ কালোজিরা খাওয়ার উপকারিতা - কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম 

ঔষধের থেকে লতাপাতার গুণ অনেক বেশি আর লাতাপাতার কোনো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া থাকে না সেজন্য নিশ্চিন্তে ব্যবহার করতে পারেন লতাপাতা জাতীয় ঔষধ। আকন্দ গাছের পাতা শুধু বাতের ব্যথাই ভালো করে না আরো অনেক সমস্যা দূর করত সাহায্য করে এই আকন্দ গাছ বা আকন্দ গাছের পাতা।

ফটো কালেক্টঃ wikimedia.org

বাতের ব্যথা কমানোর উপায় - বাতের ঔষধের নামঃ শেষ কথা 

বাতের ব্যথা কেন হয় বাতের ব্যথা কোথায় কোথায় হয় বাত কত প্রকার ও কি কি বাতের ব্যথার লক্ষণ  বাতের ব্যথা কমানোর উপায় বাতের ব্যথা দূর করার ঘরোয়া উপায় কি খেলে বাতের ব্যথা বাড়ে বাতের ঔষধের নাম বাত ব্যাথার ঔষধের নাম বাংলাদেশ বাত ব্যাথার লতাপাতা ঔষধের নাম কি এই সকল বিষয়ে আজকের আর্টিকেল আলোচনা করা হয়েছে। 

আশা করছি এই সকল বিষয়ে আপনি ভালোভাবে জানতে পেরেছেন। তারপরেও যদি এই বিষয়ে আরো কিছু জানার থাকে তাহলে কমেন্ট এর মাধ্যমে আমাদের জানাতে পারেন। এবং এরকম আরো তথ্যমূলক আর্টিকেল পেতে আমাদের JONOPRIYO BLOG ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করতে পারেন। এতক্ষণ আমাদের সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন