৫ টি ক্রিটিকাল ডিফেক্ট এর নাম - ১০ টি অলটারের নাম

যারা গার্মেন্টস সেক্টরে কাজ করেন বা কাজ করতে চাচ্ছেন তাদের ৫ টি ক্রিটিকাল ডিফেক্ট এর নাম এবং ১০ টি অলটারের নাম সহ এরকম আরও বিভিন্ন বিষয়ে জানার প্রয়োজন হয়। এবং যারা গার্মেন্টস সেক্টরে ভাইবা দিতে যান তাদের ৫ টি ক্রিটিকাল ডিফেক্ট এর নাম কি এগুলো এবং এরকম আরো বিভিন্ন প্রশ্ন করা হয়ে থাকে।
৫ টি ক্রিটিকাল ডিফেক্ট এর নাম

তাই চলুন ৫ টি ক্রিটিকাল ডিফেক্ট এর নাম এবং ১০ টি অলটারের নাম সহ এই সম্পর্কিত আরো বেশ কিছু বিষয়ে বিস্তারিতভাবে জেনে নেওয়া যাক। 

সূচিপত্রঃ যে বিষয়ে সবার আগে জানতে চান সেই লেখার উপর ক্লিক করুন 

৫ টি ক্রিটিকাল ডিফেক্ট এর নাম - Critical defect কি কি 

যারা গার্মেন্টসের সেক্টরে কাজ করেন তারা অনেক সময় এগুলো প্রশ্নের মুখোমুখি হয়ে থাকেন কিন্তু ৫ টি ক্রিটিকাল ডিফেক্ট এর নাম না জানা থাকার কারণে হয়তো বলতে পারেন না। ডিফেক্ট মূলত তিন প্রকার হয়ে থাকে সেগুলো হলোঃ মেজর ডিফেক্ট, মাইনর ডিফেক্ট এবং ক্রিটিকাল ডিফেক্ট। এই ক্রিটিকাল ডিফেক্ট ৫ প্রকারের হয়ে থাকে। পোশাকের মধ্যে যে ধরনের সমস্যা থাকলে ভোক্তা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকে সে ধরনের ডিফেক্টকে ক্রিটিকাল ডিফেক্ট বলা হয়। 

  • স্টাইলিং মিসটেক
  • ব্রান্ড এন্ড কেয়ার লেবেল মিসটেক 
  • কোন কিছু ব্রোকেন থাকা
  • ইনকারেক্ট শিপিং মার্ক
  • রিকোয়ারমেন্ট এর বাহিরে পোশাক তৈরি করলে সেটাও ক্রিটিকাল ডিফেক্ট। 

Minor defect কি কি

যে সমস্যার কারণে পণ্য ব্যবহারের অনুপযোগী হবে না কিন্তু পণ্যের উপযোগিতা বা বাহ্যিক সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে থাকে তাকে মাইনর ডিফেক্ট বলে। মাইনর ডিফেক্ট মূলত ছয় প্রকারের হয়ে থাকে সেগুলো হলোঃ 

  • Loose Thread
  • Uncut Thread
  • Uneven Rewedge
  • Lob Uneven
  • Inseam point up down
  • Oil mark very small 

আরো পড়ুনঃ বাংলাদেশে কোন গেম খেলে টাকা আয় করা যায়

এইগুলো মূলত মাইনর ডিফেক্ট এই ছয়টি ছাড়াও এই ধরনের যত সমস্যা রয়েছে সেগুলো সবই মাইনর ডিফেক্ট।

১০ টি অলটারের নাম 

৫ টি ক্রিটিকাল ডিফেক্ট এর নাম জানতে পেরেছেন এবার যারা জানতে চান ১০ টি অলটারের নাম তারা জেনে নিন এই ১০ টি অলটারের নাম।

  1. বারটেক মিসিং
  2. ওয়েল স্পট
  3. ড্যামেজ
  4. ওভার লক ব্রোকেন
  5. ফ্রেবিক ফল্ট
  6. শেডিং পার্টস
  7. নিডেল কাট ও মার্ক
  8. পাকারিং
  9. বাটন হাল্ফ স্টিচ
  10. টেনশন লুজ

এই হলো ১০ টি অলটারের নাম। এগুলো ছাড়াও এই ধরনের আরো যত সমস্যা রয়েছে সবই অলটারের মধ্যে পড়ে। হয়তো প্রাক্টিক্যাল না দেখালে বুঝতে পারবেন না।

লেবেল কাকে বলে

লেভেল হল কোন প্রোডাক্ট বা পণ্যের সম্পর্কে সকল তথ্য জানার জন্য কোম্পানির সকল তথ্য সহ কাগজের টুকরো লাগানো থাকে সেটাকে লেবেল বলা হয়। এই লেভেলের মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন এটা কোন কোম্পানির পণ্য বা প্রোডাক্ট এবং সেই কোম্পানির নাম জানতে পারবেন। আর সেজন্য প্রতিটা পণ্যের প্যাকেটে বা পণ্যের গায়ে লেবেল লাগানো হয়। 

লেবেল কত প্রকার

পোশাকের লেভেল অনেক রকমের হয়ে থাকে কিন্তু সর্বপ্রথম দুটি লেভেল থাকে সেটা হল মেইন লেভেল এবং সাব লেভেল। মেইন লেভেল হল কোন পোশাকের গায়ে যদি শুধু কোম্পানির নিজস্ব নাম বড় করে লেখা থাকে তাহলে সেটাকে মেইন লেভেল বলা হয়। 

লেবেল কত প্রকার

আর সাব লেভেল হল পোশাকের গায়ে যদি কোম্পানির নাম পোশাকের সাইজ এবং পোশাকের দাম লেখা থাকে তাহলে সেটাকে সাব লেভেল বলা হয়। সাব লেভেল চার প্রকার হয়ে থাকে সেগুলো হলোঃ 

  • কেয়ার লেবেল
  • সাইজ লেবেল
  • প্রাইস লেবেল
  • কম্পোজ লেবেল

কেয়ার লেবেল

কোন পোশাকের গায়ে যখন সেই পোশাকের গুনাগুন সম্পর্কে এবং সেই পোশাকের ব্যবহার সম্পর্কে লেখা থাকে তখন সেটাকে কেয়াল লেবেল বলে।

সাইজ লেবেল

পোশাকের যে লেভেলের মধ্যে সাইজ লেখা থাকে সেটাকে সাইজ লেবেল বলা হয়। এই সাইজ লেবেলে অনেক ধরনের সাইজ লেখা থাকে যেমন: L,S,XL,XXL,XS,XXS ইত্যাদি। 

আরো পড়ুনঃ অনলাইন থেকে আনলিমিটেড টাকা ইনকাম করার সহজ ৮ টি উপায়

প্রাইস লেবেল

যে লেবেলে পোশাকের প্রাইস লেখা থাকে এবং পোশাকে লাগানো থাকে সেটাকে প্রাইস লেবেল বলা হয়।

কম্পোজ লেবেল

পোশাকের কম্পোজ সম্পর্কে যে লেবেল লাগানো হয় পোশাকের মধ্যে সেটাকে পোশাকের কম্পোস্ট লেভেল বলে। 

গার্মেন্টস প্রসেস নাম

গার্মেন্টসের পোশাক ডিজাইন থেকে শুরু করে মার্কেটে সেল করা পর্যন্ত অনেক প্রসেস রয়েছে। সেজন্য এগুলো প্রসেস সম্পূর্ণ করতে বিভিন্ন ইউনিটে লোকজন কাজ করে থাকে। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত গার্মেন্টস প্রসেস এর নাম গুলো জানুন: 

  • স্যাম্পলিং ডিপার্টমেন্ট 
  • মার্কেটিং ডিপার্টমেন্ট 
  • স্টোর ডিপার্টমেন্ট 
  • মার্চেন্ডাইজিং ডিপার্টমেন্ট 
  • কাটিং সেকশন
  • ডিজাইনিং ডিপার্টমেন্ট 
  • সুইং সেকশন
  • এমব্রোয়ডারি ও প্রিন্টিং সেকশন
  • ওয়াশিং ডিপার্টমেন্ট 
  • প্যাকিং এবং ফিনিশিং সেকশন 
  • আইটি ডিপার্টমেন্ট 
  • কমার্শিয়াল ডিপার্টমেন্ট 
  • একাউন্টস ডিপার্টমেন্ট 

একটা পোশাক তৈরির জন্য এই সকল ডিপার্টমেন্ট এর কাজ করতে হয়। আর এইগুলো ডিপার্টমেন্টের  কর্মীদের মাধ্যমে পোশাক প্রসেস হয়ে থাকে।

ডিফেক্ট কত প্রকার কি কি

ডিফেক্ট কত প্রকার কি কি তা ইতোমধ্যে উপরের অংশে আপনাদের জানিয়ে দিয়েছি। এরপরেও যারা ভালোভাবে বুঝতে পারেননি তারা এই অংশ থেকে আবার জেনে নিন ডিফেক্ট কত প্রকার কি কি? ডিফেক্ট তিন প্রকার সেগুলো হলোঃ 

  • মাইনর ডিফেক্ট
  • মেজর ডিফেক্ট
  • ক্রিটিকাল ডিফেক্ট

নিডেল কত প্রকার

সেলাইয়ের ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো নিডেল এই নিডেল দুই প্রকারের হয়ে থাকে যথাঃ

  • হ্যান্ড নিডেল
  • মেশিন নিডেল
নিডেলের আবার দুইটি পয়েন্ট রয়েছে। নিডলের দুইটি পয়েন্ট হলোঃ

  • কাটিং পয়েন্ট
  • ক্লথ পয়েন্ট

বাটন কত প্রকার
বাটন কত প্রকার

বাটন অর্থাৎ যেটাকে আমরা বোতাম হিসেবে চিনে থাকি ইংরেজিতে বলা হয়ে থাকে Button এই বাটন মূলত চার প্রকার হয়ে থাকে যথাঃ

  • প্লাস্টিক বাটন 
  • মেটাল বাটন
  • নাইলন বাটন
  • কাঠের বাটন

এই চার প্রকারের বাটন বিভিন্ন পোশাকে ব্যবহার করা হয় এতে করে পোশাকের সৌন্দর্য ও ব্যবহার মান ভালো হয়।

কোয়ালিটি কত প্রকার

গার্মেন্টস অনেক প্রকার কোয়ালিটি রয়েছে। যারা গার্মেন্টসের জব নিতে চান তাদেরকে এগুলো বিষয়ে জেনে রাখা প্রয়োজন হয় সেজন্য আপনাদের সুবিধার্থে কোয়ালিটি কত প্রকার তা দেওয়ার চেষ্টা করলাম। 

  • ডিজাইন কোয়ালিটি
  • কাটিং কোয়ালিটি 
  • লাইন কোয়ালিটি 
  • সুইং কোয়ালিটি
  • মেজারমেন্ট কোয়ালিটি 
  • ফিনিশিং কোয়ালিটি
  • ফিটনেস কোয়ালিটি
  • গুনমান কোয়ালিটি

জিপার কত প্রকার

জিপার মূলত চার প্রকার হয়ে থাকে যথাঃ

  • প্লাস্টিক জিপার
  • মেটাল জিপার
  • নাইলন জিপার
  • ইনভিজিবল জিপার

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের ঘরে বসে ইনকাম করার উপায় - ঘরে বসে ইনকাম

এই চার প্রকার জিপার এর মধ্যে জিপার ওয়ে রয়েছে দুই প্রকার সেগুলো হলোঃ ওয়ান ওয়ে জিপার এবং টু ওয়ে জিপার। 

  • ওয়ান ওয়ে জিপার - যে জিপার এক সাইট দিয়ে খোলা যায় বা বন্ধ করা যায় সেটাকে বলা হয় ওয়ান ওয়ে জিপার। 
  • টু ওয়ে জিপার - যে জিপার দুই সাইড দিয়ে খোলা যায় বা বন্ধ করা যায় তাকে টু ওয়ে জিপার বলা হয়। 

নেক কত প্রকার

অনেকে জানতে চেয়ে থাকেন নেক কত প্রকার। নেক মানে হল গলা। অর্থাৎ গার্মেন্টসে যেগুলো পোশাক তৈরি করা হয় সেগুলো পোশাকের গলাকে নেক বলা হয়। নেক ২০ প্রকার যথাঃ

  1. Cowl Neck
  2. Boat Neck
  3. Crew Neck
  4. V Neck
  5. Sweetheart  Neck
  6. Victorian Neck
  7. Surplice Neck
  8. Turtle Neck
  9. Scoop Neck
  10. Strapless Neck
  11. Plunging Neck
  12. Square Neck
  13. Off Shoulder Neck
  14. Notch Collar Neck
  15. Peter Pan Collar Neck
  16. Keyhole Neck
  17. One Shoulder Neck
  18. Draped Neck
  19. Halter Neck
  20. Illusion Neck

মেজারমেন্ট কত প্রকার

অনেকে জানতে চেয়ে থাকেন মেজারমেন্ট কত প্রকার। পোশাকের মাপ নেওয়ার জন্য মেজারমেন্ট কত প্রকার তা জানা প্রয়োজন। মেজারমেন্ট মূলত দুই প্রকার হয়ে থাকে সেগুলো হলোঃ ইঞ্চি এবং সেন্টিমিটার। 

গামটেপ কত প্রকার

৫ টি ক্রিটিকাল ডিফেক্ট এর নাম এবং ১০ টি অলটারের নাম সম্পর্কে ইতিমধ্যে জানতে পেরেছেন।কিন্তু অনেকে জানতে চেয়ে থাকেন গামটেপ কত প্রকার? গামটেপ অনেক প্রকারের হয়ে থাকে এবং এগুলো দিয়ে যে কোন পণ্যের প্যাকেটিং করার সময় ব্যবহার করা হয়ে থাকে। গাম টেপ সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে যারা গাম টেপ বিক্রয় করে তাদের সাথে কথা বলে দেখতে পারেন। 

আমাদের শেষ কথা 

প্রিয় বন্ধুরা আশা করছি আজকের আর্টিকেল থেকে আপনারা ৫ টি ক্রিটিকাল ডিফেক্ট এর নাম ১০ টি অলটারের নাম Critical defect কি কি Minor defect কি কি লেবেল কাকে বলে লেবেল কত প্রকার গার্মেন্টস প্রসেস নাম ডিফেক্ট কত প্রকার কি কি বাটন কত প্রকার কোয়ালিটি কত প্রকার জিপার কত প্রকার নেক কত প্রকার মেজারমেন্ট কত প্রকার গামটেপ কত প্রকার এই সকল বিষয়ে জানতে পেরেছেন। 

এবং এসব বিষয় জানতে পেরে কিছুটা হলেও উপকৃত হয়েছেন। তারপরও যদি আপনাদের এই বিষয়ে আরো কিছু জানার থাকে তাহলে কমেন্ট আমাদের জানাবেন। এবং এরকম আরও বিভিন্ন বিষয় জানতে আমাদের JONOPRIYO BLOG ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করতে পারেন ধন্যবাদ। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন