গরু দিয়ে আকিকা দেওয়ার নিয়ম - আকিকার নিয়ম ও দোয়া

আসসালামু আলাইকুম ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম এবং আকিকার নিয়ম ও দোয়া সম্পর্কে যদি জানতে চান তাহলে আজকের আর্টিকেলটি আপনার জন্য। আজকের আর্টিকেল আপনারা জানতে পারবেন ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম এবং আরো অনেক কিছু বিষয়ে। তাহলে চলুন বিস্তারিতভাবে জেনে নেওয়া যাক ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম সহ এর সম্পর্কিত আরো কিছু বিষয়ে।
ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম

ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম আকিকার নিয়ম ও দোয়া ছেলেদের আকিকার নিয়ম মেয়েদের আকিকার নিয়ম আকিকার মাংস বন্টনের নিয়ম সহ এই সম্পর্কিত আরো অনেক কিছু বিষয়ে আজকের আর্টিকেল আলোচনা করা হবে তাই এ সকল বিষয়ে জানতে চাইলে আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়ুন। 

পোষ্ট সূচিপত্রঃ যে অংশ পড়তে চান তার উপর ক্লিক করুন

ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম

সন্তান জন্ম গ্রহনের পরে আল্লাহর শুকরিয়া এবং আনন্দের বহিঃপ্রকাশ করার জন্য আকিকা দেওয়া হয়ে থাকে অনেকে হয়তো মনে করে থাকেন যে সন্তানের নাম রাখার জন্য আকিকা দেওয়ার প্রয়োজন বা দেওয়া হয়ে থাকে আসলে এটা ঠিক নয় শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য এবং আল্লাহর শুকরিয়া আদায়ের জন্য আকিকা দেওয়া হয়ে থাকে। 

এই অংশ আপনারা জানবেন ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম। কারণ বেশিরভাগ মানুষই ছাগল দিয়ে আকিকা দিয়ে থাকেন কিন্তু হয়তো সবাই জানে না ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম তাই যারা জানেন না এই অংশ থেকে জেনে নিন ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম সম্পর্কে। 

আরো পড়ুনঃ সাহাবীদের নাম অর্থসহ - জান্নাতে ২০ সাহাবীর নাম

ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম হলো ছেলে সন্তানের জন্য দুটি ছাগল এবং মেয়ে সন্তানের জন্য একটি ছাগল দিয়ে আকিকা দিতে হবে। তবে কারো যদি সামর্থ্য না থাকে দুটি ছাগল দেওয়ার তাহলে একটি ছাগল দিয়েও ছেলে সন্তানের আকিকা দেওয়া যাবে এবং তা কবুল হবে।  

আর যদি কারো সমর্থ্য থাকে দুটি ছাগল দেওয়ার মতো তাহলে অবশ্যই দুটি ছাগল দিয়ে আকিকা দিতে হবে। আশা করছি জানতে পারলেন ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম। 

আকিকার নিয়ম ও দোয়া - আকিকার দোয়া বাংলা উচ্চারণ 

এই অংশে আপনার জানতে পারবেন আকিকার নিয়ম ও দোয়া এবং আকিকার দোয়া বাংলা উচ্চারণ সন্তান জন্মের ৭ দিন পরে আকিকা দেওয়া সুন্নত এবং উত্তম কিন্তু কারো যদি সেরকম অবস্থা না থাকে তাহলে ১৪তম দিনে অথবা ২১তম দিনে আকিকা দিতে পারেন।  

তারপরও যদি কারো এরকম সামর্থ্য না থাকে এবং অনেক গরিব হয়ে থাকে তাহলে তার যখন সামর্থ্য হবে তখনই দিতে পারবে এতে করে কোন সমস্যা নেই। আবার যদি পিতা-মাতা তার সন্তানের আকিকা দিতে না পারে তাহলে সেই সন্তান বড় হয়ে নিজেই নিজের আকিকা দিতে পারবে। এতে করে পিতা-মাতাও এর সওয়াব পেয়ে থাকবে।  

আকিকার দোয়া 

আকিকার দোয়া আরবিঃ الله حجيي أكيكاتو ابن فولانين دموهابيداميهي ولحموها بلاحميها وعظمها بيازمها وزيلدوها بزلاديهي وشا روحها بشري الله الله ، الله فيدا علي ابن مينار

আকিকার দোয়া বাংলা উচ্চারণঃ আল্লাহুম্মা হাযিহী আকিকাতু ইবনী ফুলানিন দামুহাবিদামিহী ওয়া লাহমুহা বিলাহমিহী ওয়া আজমুহা বিআযমিহী ওয়া জিলদুহা বিজিলাদিহী ওয়া শা রুহা বিশাররিহী আল্লাহুম্মাজআলহা ফিদাআল্লি ইবনী মিনান্নার। 

মেয়েদের আকিকার নিয়ম

মেয়েদের আকিকার নিয়ম হলো যদি ছাগল আকিকা দেন তাহলে মেয়ে সন্তানের জন্য একটি ছাগল আকিকা দিলেই হবে। আকিকা মূলত দেওয়া হয়ে থাকে সন্তানের যেন কোন বালা মুসিবত না হয় এবং আল্লাহর শুকরিয়া আদায়ের জন্য। আশা করছি বুঝতে পারলেন মেয়েদের আকিকার নিয়ম কি। 

ছেলেদের আকিকার নিয়ম

সন্তান জন্মের পরে সন্তানের আকিকা দেওয়ার প্রয়োজন হয় যাতে করে সন্তান যে কোন বিপদ আপদ থেকে মুক্ত থাকতে পারে এবং আকিকা দেওয়ার মাধ্যমে আল্লাহ শুকরিয়া আদায় করা হয়। আর ছেলে এবং মেয়েদের আকিকার মধ্যে পার্থক্য রয়েছে এবং আকিকার নিয়ম ও দোয়া রয়েছে যা ইতিমধ্যে আপনারা জানতে পেরেছেন এবার আসুন জানা যাক ছেলেদের আকিকার নিয়ম সম্পর্কে।

আরো পড়ুনঃ মাসিক না হলে কি বাচ্চা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে -মাসিক না হলে ঔষধ

যদি আপনার ছেলে সন্তান জন্মগ্রহণ করে থাকেন তাহলে সেই ছেলে সন্তানের আকিকা দেওয়ার জন্য দুটি ছাগল প্রয়োজন। অর্থাৎ ছেলেদের আকিকার নিয়ম হলো দুটি ছাগল দেওয়া তবে কোন পিতা মাতার যদি সামর্থ্য না থাকে দুটি ছাগল দেওয়ার তাহলে একটি ছাগল দিলেও আকিকা কবুল হয়ে যাবে। তাই যার যেরকম সামর্থ্য রয়েছে তারা সেভাবেই দিবেন কবুল করার মালিক আল্লাহ। 

গরু দিয়ে আকিকার নিয়ম

গরু দিয়ে আকিকার নিয়ম অনেকে জানতে চেয়ে থাকেন আসলে ছাগল এবং দুম্বা দিয়ে আকিকা দেওয়া সবচেয়ে বেশি উত্তম। তারপরে কেউ যদি গরু দিয়ে আকিকা দিতে চান তাহলে দিতে পারবেন।তবে এই বিষয়ে বিভিন্ন জনের বিভিন্ন রকম মত থাকে কারণ হাদিসে গরু দিয়ে আকিকা দেওয়ার কথা বলা হয়নি এবং নবী-রাসূলগণের সময় গরু দিয়ে আকিকা দেওয়া হয়নি বা হতো না। 

তারপরও আপনি যদি গরু দিয়ে আকিকা দিতে চান তাহলে দিতে পারেন। একটি গরুকে সাতটি সন্তানের জন্য ভাগ করে কুরবানীর মত আকিকা দেওয়া যেতে পারে যেহেতু গরুর একটি অংশের সমান একটি ছাগল হয়ে থাকে। তাই যদি কোন মেয়ের আকিকা দিতে চান তাহলে গরুর এক ভাগের অংশ দিয়ে আকিকা দিতে হবে। 

আর যদি কোন ছেলের আকিকা দিতে চান তাহলে গরুর দুই ভাগের অংশ দিয়ে আকিকা দিতে হবে।কোরবানির মত করে আকিকার মাংস তিন ভাগে ভাগ করতে হবে এক ভাগ নিজেদের জন্য আরেক ভাগ আত্মীয়-স্বজনদের জন্য এবং আরেকভাগ গরীব অসহায় মানুষদের জন্য। 

বকরি দিয়ে আকিকা - বকরি দিয়ে আকিকার নিয়ম

বকরি দিয়ে আকিকা দেওয়ার নিয়ম হয়তো আপনারা বেশিরভাগ মানুষই জেনে থাকবেন তারপরেও সঠিকভাবে নিয়ম অনেকেই হয়তো জানেন না। বকরি দিয়ে আকিকার নিয়ম হল ছেলে সন্তানের জন্য দুটো বকরি ছাগল এবং মেয়ে সন্তানের জন্য একটি বকরি ছাগল দিয়ে আকিকা দেওয়া যাবে। 

তবে কারো যদি সমর্থ্য না থাকে তাহলে দুটো না দিলেও কোনো রকম সমস্যা নেই। অনেকেই হয়তো মনে করে থাকেন শুধু পুরুষ ছাগল দিয়ে আকিকা দেওয়া যায় আসলে এটা ভুল ধারণা মহিলা ছাগল দিয়েও আকিকা দেওয়া যাবে। 

আকিকার জন্য ছাগলের বয়স

ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম এবং আকিকার নিয়ম ও দোয়া সম্পর্কে ইতিমধ্যে আপনারা জানতে পেরেছেন। কিন্তু আপনাদের আরো একটি বিষয় জানা প্রয়োজন সেটি হল আকিকার জন্য ছাগলের বয়স কত হতে হবে। 

আকিকার জন্য ছাগলের বয়স হতে হবে কমপক্ষে এক বছর। এক বছর বয়সী ছাগল দিয়ে আকিকা দেওয়া যাবে তবে কোন ছাগলের বয়স যদি এক বছরের কম হয় কিন্তু সেই ছাগলের স্বাস্থ্য এবং চেহারা দেখে মনে হয় যে এক বছরের বেশি হবে তাহলে সেই ছাগল দিয়ে আকিকা দেওয়া যাবে। তবে এক বছর পার হওয়ার পরে সেই ছাগল দিয়ে আকিকা দেওয়াই উত্তম হবে। 

আকিকার মাংস বন্টনের নিয়ম মিজানুর রহমান 

আকিকার নিয়ম ও দোয়া জানতে পেরেছেন কিন্তু অনেকে আবার জানতে চেয়ে থাকেন আকিকার মাংস বন্টনের নিয়ম আসলে আকিকার মাংস বন্টনের নিয়ম হাদিসে উল্লেখ করা নেই তবে আকিকার মাংস আপনি এইভাবে বন্টন করতে পারেন একটি ছাগল বা দুটি পাগল আকিকা দেওয়ার পরে আত্মীয়-স্বজনদের মাঝে সমানভাবে ভাগ করে দেওয়া এবং গরিব অসহায় ফকির মিসকিনদের মাঝে বন্টন করে দেওয়া এবং নিজেরাও খেতে পারেন আকিকার মাংস। 

আরো পড়ুনঃ ঘুমানোর দোয়া বাংলায় - রাতে ঘুম না হলে করণীয়

আবার আকিকার মাংস আরেকটি ভাবেও ভাগ করতে পারেন সেটি হল আকিকা দেওয়ার পরে সেই মাংস রান্না করে কিছু গরিব অসহায় মানুষ এবং আত্মীয় স্বজনদের খাওয়াতে পারেন। আশা করছি আকিকার মাংস বন্টনের নিয়ম সম্পর্কে বুঝতে পারলেন। 

আকিকার গোস্ত খাওয়ার নিয়ম 

উপরের অংশ পড়ে আপনারা হয়তো বুঝতেই পেরেছেন আকিকার গোস্ত খাওয়ার নিয়ম অনেকে হয়তো মনে করে থাকেন আকিকার গোস্ত পিতা-মাতা খেতে পারবে না আসলেই এই ধারণাটি ভুল।আকিকার গোশত সবাই খেতে পারবে তাই আকিকা দেওয়ার পরে মাংসগুলো আত্মীয়-স্বজন গরিব অসহায় ফকির মিসকীনদের মাঝে বন্টন করে দেওয়ার পরে কিছুটা মাংস রেখে সেগুলো নিজেরা খেতে পারবেন। এবং যদি সন্তান বড় হয়ে যায় এবং তারপরে আকিকা দেওয়া হয় তাহলে সে নিজের আকিকার গোস্ত নিজেই খেতে পারবে। 

ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম - আকিকার নিয়ম ও দোয়াঃ শেষ কথা  

ছাগল দিয়ে আকিকার নিয়ম আকিকার নিয়ম ও দোয়া আকিকার দোয়া বাংলা উচ্চারণ মেয়েদের আকিকার নিয়ম ছেলেদের আকিকা দেওয়ার নিয়ম গরু দিয়ে আকিকার নিয়ম বকরি দিয়ে আকিকা আকিকার জন্য ছাগলের বয়স আকিকার মাংস বন্টনের নিয়ম মিজানুর রহমান  আকিকার গোস্ত খাওয়ার নিয়ম কি এ সকল বিষয়ে আজকের আর্টিকেলে আলোচনা করা হয়েছে। 

আশা করছি আপনারা এই সকল বিষয়ে ভালোভাবে জানতে পেরেছেন তারপরও যদি এই বিষয়ে আরো কিছু জানার থাকে তাহলে কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন এবং এরকম আরো তথ্যমূলক আর্টিকেল পেতে আমাদের ওয়েবসাইট নিয়মিত ফলো করুন। এতক্ষণ আমাদের সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন